রবিবার, অক্টোবর 25, 2020

পাচারচক্রে 'নকল' শিশু
পাচারচক্রে 'নকল' শিশু

পাচারচক্রে 'নকল' শিশু

  • scoopypost.com - Jan 11, 2020
  • ফর্সা হওয়ার ক্রিমের কী চাহিদা! চাহিদা মেটাতে তাই নিষিদ্ধ ওই প্রসাধনী অভিনব পন্থায় চোরাচালান চলছে উগান্ডায়। আর তা করতে গিয়ে কঙ্গো সীমান্ত থেকে সম্প্রতি ধরা পড়ল এক মহিলা। রীতিমতো জামাকাপড় পরানো নকল শিশুর মধ্যে নিষিদ্ধ প্রসাধনী পুরে সীমান্ত দিয়ে দেশে চোরাচালানের ছক কষেছিল ধৃত মহিলা। উগান্ডার রেভিনিউ অথরিটির এক আধিকারিক টুইটারে এই ছবি দিয়েছেন। কঙ্গো সীমান্তে একটি বাসকে আটক করে চোরাচালানকারী মহিলাকে আটক করা হয়।       

    চোরাচালান হওয়া প্রসাধনীর বেশিরভাগই ফর্সা হওয়ার ক্রিম। ২০১৬ তে ফর্সা হওয়ার ক্রিম নিষিদ্ধ হয় উগান্ডায়। এই ধরনের ক্রিমে পারদ ও হাইড্রোকুইননের উপস্থিতি চামড়ার পক্ষে অত্যন্ত ক্ষতিকারক বলে নিষিদ্ধ হয় উগান্ডায়। কিন্তু ফর্সা হওয়ার অদম্য আকাঙ্খায় বাড়তে থাকে চাহিদা। তাই কঙ্গো সীমান্ত পেরিয়ে ফর্সা হওয়ার ক্রিম দেশে ঢোকার খবর পেয়ে তক্কে তক্কে ছিল উগান্ডার রাজস্ব দফতরের আধিকারিকরা। ছদ্মবেশী মা ও নকল শিশু বমাল ধরা পড়ার ঘটনাটি সোশ্যাল মিডিয়ায় দিয়েছেন রাজস্ব দফতরের এক আধিকারিক।

    রেভিনিউ অথরিটির, কর্পোরেট অ্যাফেয়ার্স কমিশনার ইয়ান রুমানিয়াকা জানিয়েছেন, “আমাদের কাছে খবর ছিল, যাতায়াতের পথে কিছু মহিলা নিষিদ্ধ প্রসাধনী চোরাচালান করছে। তাঁদর সঙ্গে শিশু থাকে। তবে ওই শিশু নকল ও সাজানো।” মাইক্রোব্লগিং প্ল্যাটফর্মে তিনি জানিয়েছেন, “আপাতভাবে মায়ের কোলে শিশুকে দেখে সন্দেহের কিছু থাকে না। কিন্তু নির্দিষ্ট খবরের ভিত্তিতে আমরা জানতে পেরেছিলাম, নকল শিশুর আকৃতির মধ্যে প্রসাধনীর চোরাচালান করা হচ্ছে। একজন মা পিঠে করে শিশুকে নিয়ে যাচ্ছে। শিশুর নড়াচড়া, কান্নাকাটি কিছু না থাকায় অস্বাভাবিক ঠেকে আমাদের। তারপরেই আমরা আটক করি।”