মঙ্গলবার, অক্টোবর 27, 2020

মশার কামড়ে প্রতিবন্ধী
মশার কামড়ে প্রতিবন্ধী

মশার কামড়ে প্রতিবন্ধী

  • scoopypost.com - Oct 11, 2020
  • মশা থেকে সাবধান। করোনা আবহে ডেঙ্গু, ম‍্যালিগন‍্যান্ট ম‍্যালেরিয়া, চিকনগুনিয়ার কথা মানুষ প্রায় ভুলতেই বসেছে। কিন্তু মশার কামড়ের পরিণতি যে কী মারাত্মক হতে পারে কৈশোর পেরনো কাম্বোডিয়ার যুবক ব়ং চেট। কাম্পং ছাং প্রদেশের বাসিন্দা বছর সাতাশের যুবক মশার কামড়ে আজ শারীরিক প্রতিবন্ধী। ফুটবলার হওয়ার স্বপ্ন তাঁর অধরা থেকে গিয়েছে। এখন ঘরবন্দি জীবন। কারণ নড়াচড়াতেও যেমন অসুবিধে তেমনই অনেকে তাঁর শারীরিক বিকৃতি নিয়ে তামাশা করে থাকে।
    বছর কুড়ি আগে তাঁর বয়স যখন ৬। তখন বাঁ পায়ে মশা কামড়েছিল। ওই পায়ে সামান্য কাটাছেঁড়ার ক্ষত ছিল। মশার কামড়ে স্বাভাবিক কারণে তখন চুলকেছিল সে কিন্তু ওই চুলকানো যে তার কাল হয়ে দাঁড়াবে স্বপ্নেও ভাবেনি। বাবা মা স্থানীয় কারখানার শ্রমিক। অভাব অনটনের সংসারে ওই বালকের পায়ের ছোটখাটো ক্ষত নিয়ে মাথা ঘামাননি তাঁরাও। কিছুদিন পরে ওই ক্ষতস্থানের পাশে ছোট ছোট মাংসপিণ্ড জমা হতে থাকে। যখন তার ১২ বছর বয়স তখন ওই পা অস্বাভাবিক আকৃতির। প্রায় ৫ গুণ। সেই থেকে ওই পা নিয়ে বিব্রত বালক আজ যুবক।
    বহু বছর পর এক সহৃদয় মহিলা আড়াই হাজার ডলার অর্থাৎ প্রায় ১ লাখ ৮২ হাজার টাকা দিয়েছিলেন বং চেট - এর চিকিৎসার জন্য। চিকিৎসকরা জানান, ওই যুবক এখন লিম্ফাইটিক ফাইলারিয়াসিস রোগে আক্রান্ত। এই রোগের কোনও চিকিৎসা নেই। কোনও প্রতিষেধক আবিষ্কার হয়নি। মশার কামড়ের মাধ্যমে অতি সরু সুতোর মতো এক ধরনের পোকা যা খালি চোখে দেখাই যায় না ওই বালকের শরীরের ক্ষতের মধ্যে দিয়ে প্রবেশ করেছিল। তারপর শরীরে সংক্রমণ ছড়িয়ে তার পা অস্বাভাবিক ফুলে বিকট আকৃতি হয়ে ওঠে।