শনিবার, অক্টোবর 31, 2020

নিউ নর্ম্যালে বেড়ানোর নয়া ভাবনা
নিউ নর্ম্যালে বেড়ানোর নয়া ভাবনা

নিউ নর্ম্যালে বেড়ানোর নয়া ভাবনা

  • scoopypost.com - Sep 27, 2020
  • ইট, কাঠের জঙ্গল ছাড়িয়ে এক বুক অক্সিজেন নিয়ে আসার জন্য কেউ ছুটে যান পাহাড়ের কোলে কেউ বা তিরতির করে বয়ে যাওয়া নদী পাশে বসে কবিতার খাতা খোলেন। রোজকার ক্লান্তি, মানসিক চাপের বাইরে একমুঠো ভালাবোসা, ভালোলাগার পৃথিবী বলতে মানুষের কাছে পর্যটন। আজ, ২৭ সেপ্টেম্বর বিশ্ব পর্যটন দিবস।

    করোনা এখন অতিমারী। বিশ্বজুড়ে পর্যটন মুখ থুবড়ে পড়েছে। পাহাড় ছোঁয়ার স্বপ্ন, জঙ্গুল পথে দাঁতালের দস্যিপণা কিম্বা সমুদ্রপাড়ে ঝিনুক কুড়োনোর স্বপ্ন নিয়েই মানুষ এখন ঘরে আটকে বাঁচছে।

    ১৯৮০ সালে বিশ্বজুড়ে পর্যটনকে অন্য মাত্রা, পর্যটনের মাধ্যমে মানুষকে খুশি রাখার পাশাপাশি যে কোনও দেশ বা রাজ্যের অর্থনীতির প্রসারের জন্য এই দিবস পালনের অঙ্গীকার করা হয়। ২০২০ সালে বিশ্বজুড়ে পর্যটন ব্যবসা নতুন চ্যালেঞ্জের সম্মুখীন। তবে একদিন পরিস্থিতি বদলাবে, ঘর ছেড়ে খোলা আকাশের খোঁজে ফের নিশ্চিন্তে বের হবে মানুষ।

    নিউ নর্ম্যাল আবহে বদলেছে পর্যটনের পরিস্থিতি।আর তাই চলতি বছরে পর্যটনের জন্য রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের এই কবিতার বোধহয় প্রাসঙ্গিক..

    বহু দিন ধরে বহু ক্রোশ ধরে

    বহু ব্যয় করি বহু দেশ ঘুরে

    দেখিতে গিয়েছি পর্বতমালা

    দেখিতে গিয়েছি সিন্ধু।

    দেখা হয় নাই চক্ষু মেলিয়া

    ঘর হতে শুধু দুই পা ফেলিয়া

    একটি ধানের শিষের উপরে

    একটি শিশিরবিন্দু।।

    হ্যাঁ, আনলক পর্বে একে একে খুলছে পর্যটন কেন্দ্র। ট্রেন, বাস স্বাভাবিক হয়নি। বাড়ছে করোনা সংক্রমণও। কিন্তু মন তাকে তো ভালো রাখতে হবে। তাই নিউ নর্ম্যালে বেড়ানো ঠিকানা হোক আপনার ঘরের পাশের অজানা রাস্তা। কিংবা জনহীন মেঠো প্রান্তর। বাড়ির ছাদ থেকে বিকালের সূর্যটা কেমন দেখায় কোনওদিন দেখেছেন। গোধূলি রঙা আকাশটা ধরা দিতেই আুনার হৃদয়ে।

    এ রাজ্যে খুলেছে দিঘা, মন্দারমণি। খুলছে দার্জিলিংও।আর নতুন পরিস্থিতি বলছে আপনার বেড়ানোর বাহন হোক দু’চাকা বা চার চাকা। হাতে থাক স্যানিটাইজার গ্লাভস, মুখে মাস্ক।বেরিয় পড়ুন দিকশূন্যপুরে। নাম না জানা, আপনার ঘরের পাশেই পাবেন অপরূপ প্রকৃতি। সোশ্যাল ডিসট্যান্সিং মানার শর্তে খুলেছে আগ্রার তাজমহল, আগ্রা ফোর্ট।একে একে খুলছে বহু পর্যটনকেন্দ্র।

    রাজস্থান থেকে জলপাইগুড়ির ডুয়ার্স, কাশ্মীর থেকে কন্যাকুমারী অপেক্ষায় পর্যটেকর। আর নিউ নির্ম্যালে বিশ্ব পর্যটন দিবস দেখাচ্ছে কীভাবে বদলে যাওয়া পরিস্থিতিতে শারীরিক দূরত্ববিধি মেনে ভ্রমণ সম্ভব। করোনা আবহ দেখিয়েছে পাহাড়ের কোলে বসেও ওয়ার্ক ফ্রম হোম করা যায়। ছুটি না থাকলেও, প্রকৃতির কোলে বসে কাজ করেও আনন্দ করা যায়।

     পশ্চিমবঙ্গের বাসিন্দা হলে ঘুরে আসুন বকখালি, হেনরি আইল্যান্ড, পুরুলিয়ার গড়পঞ্চকোট থেকে বর্ধমানের ভালকি মাচান থেকে দিঘা, মন্দারমণি। রয়েছে ঘরের পাশের শান্তিনিকেতন। এখন বিভিন্ন বড় বড় হোটেল ঠিকমতো স্যানিটাইজ করে ডে-ট্রিপের ব্যবস্থা করেছে। গাড়ি নিয়ে চলে যেতে পারেন রায়চক বা টাকি। সঙ্গে রাখুন খাবার, জল, স্যানিটাইজার। হোটেসে রাত্রিবাস করতে অবশ্যই নিন স্যানিটাইজার স্প্রে। নিজেদের বিছানা, বালিশ, চাদর, তোয়ালে।

    এভাবেই একদিনের ট্রিপে নতুন ভাবে ভ্রমণ হতে পারে আপনার নিউ নর্ম্যালের অক্সিজেন।