মঙ্গলবার, মে 11, 2021

লং ড্রাইভের নয়া ঠিকানা ‘পিয়ালি আইল্যান্ড’
লং ড্রাইভের নয়া ঠিকানা ‘পিয়ালি আইল্যান্ড’

লং ড্রাইভের নয়া ঠিকানা ‘পিয়ালি আইল্যান্ড’

  • scoopypost.com - Oct 29, 2020
  • লম্বা রাস্তা চলে গিয়েছে দিকশূন্যপুরের দিকে। করোনা আবহে দমবন্ধ জীবনে যদি লং ড্রাইভ আর গ্রাম বাংলা আপনার পছন্দ হয় তাহলে নিউ নর্মালের নয়া ডেস্টিনেশন আপনার জন্য হতেই পারে পিয়ালি আইল্যান্ড।

    করোনা আবহে বাইক বা গাড়ি নিয়ে লম্বা সফর করতে চাইলে ভোরবেলাই বেরিয়ে পড়ুন সুন্দরবন লাগোয়া ছোট্ট দ্বীপটির উদ্দেশে।পিয়ালি দ্বীপকে বলা হয় সুন্দরবনের প্রবেশ দ্বার। স্থানীয়দের কাছে এই জায়গা কেল্লা নামে পরিচিত।

    জন কোলাহল বর্জিত, সবুজের সমারোহে এই জায়গা আপনাকে নতুন করে চেনাতে পারে জীবনানন্দের রূপসী বাংলাকে। এখন যদি প্রশ্ন করেন কী আছে এই দ্বীপে, তাহলে বলতে হয় কিছুই নেই। সত্যি, শহুরে ঝাঁ চকচকে রেস্তোরাঁ, হই হট্টগোল, পিত্জা, বার্গার এসব কিছুই নেই এখানে। কিন্তু যা আছে তা অনুভব করতে হয়। এখানে আছে দিগন্ত জোড়া সবুজ ক্ষেত। আছে পিয়ালি, মাতলা নদীর সঙ্গত। আছে ম্যানগ্রোভ। অনেকটা খোলা আকাশ আর পাখিদের কলকাকলি।

    কলকাতা থেকে ৭৫ কিলোমিটর দূরে পিয়ালি আইল্যান্ডকে ঘিরে রেখেছে পিয়ালি ও মাতলা নদী। নদীর ওপর সেতু পেরিয়ে ঢুকতে হয় জনপদে। কোলাহল বর্জিত ছোট্ট সবুজ গ্রাম।লাল রংয়ের মোরাম রাস্তা। নদীর পাড়ে ম্যানগ্রোভের রাজ্য।গাছে গাছে পাখি।বুক ভরে শ্বাস নেওয়া যায় এখানে। ক্যামেরাবন্দি করা যায় নদীর বুকের ওপর ডুব দেওয়া সূর্যকে।আর যদি বড়সড় ক্যামেরা থাকে তাহলে দোয়েল, ফিঙের বাইরেও লেন্সবন্দি করতে পারেন হাজারও পাখি।

    এই জায়গা মূলত প্রকৃতিপ্রেমী ও পাখি পর্যবেক্ষকদের স্বর্গরাজ্য। থাকার জায়গা আছে একটা। বুক করে আসতে হয়। শহুরে পরিষেবা মোটামুটি সেখানে মেলে।আর রাতে থাকতে না-চাইলে নিউ নর্মালে বাড়ি থেকে লুচি, আলুরদম, কষা মাংস, ডিম সেদ্ধ, কড়া পাকের সন্দেশ প্যাক করে আনতেই পারেন। নদীর পাড়ে বসে হেমন্তের শিরশিরানিতে বনভোজন বড় মনোরম হবে। তবে শর্ত একটাই কোনওভাবে নোংরা করা যাবে না সবুজ। খাবার গুটিয়ে সঠিক জায়গাতেই ফেলতে হবে কিম্বা গাড়ি করে ফেরত আনতে হবে।

    চাইলে নদী ভ্রমণ করতে পারেন নৌকোয়। দেখতে পারেন ম্যানগ্রোভ। কিছুক্ষণ গ্রামে থাকলেই সব ক্লান্তি দূর হয়ে যাবে।ফুসফুস ভরা থাকবে অক্সিজেনে আর মন খুশিতে। আর যদি এক বা দু’রাত প্রকৃতির সঙ্গে কাটাতে চান তাহলে ট্যুরিস্ট লজে থাকতে পারেন। ঘুরতে পারেন ঝরখালি ও কৈখালি। ছোট্ট দ্বীপে রিল্যাক্স করে প্রচুর মাছভাজাও খেতে পারেন। বাঙালি খাবার এখানে সবই মেলে।

    কীভাবে যাবেন

    কামালগাজি বাইপাসের ওপর দিয়ে ফ্লাইওভার ধরে বারুইপুর। সেখান থেকে গোচারণ-ধসা রোডে উঠে যেতে হবে দক্ষিণ বারাসত।কিছুক্ষণের মধ্যেই মিলবে মহিষমারি বাজার।সেখান থেকে গেলে কুলতলি স্লুইস গেটের ব্রিজ। ব্রিজ পার হলেই পিয়ালি দ্বীপ।

    কোথায় থাকবেন

    পিয়ালি আইল্যান্ড টুরিস্ট লজ। থাকার একমাত্র জায়গা। একসময় এটা সরকারের অধীনে থাকলেও, পরে বেসরকারি সংস্থাকে লিজ দেওয়া হয়। ফোন নম্বর 94334 35181.

    কী দেখবেন


    কুলতলি স্লুইস গেট, নৌকো করে হেড়োভাঙা নদী ও মাতলা, কৈখালি, ঝরখালি