বুধবার, অক্টোবর 21, 2020

এবার জাঁকিয়ে শীত, শৈত্যপ্রবাহও বেশি
এবার জাঁকিয়ে শীত, শৈত্যপ্রবাহও বেশি

এবার জাঁকিয়ে শীত, শৈত্যপ্রবাহও বেশি

  • scoopypost.com - Oct 17, 2020
  • এবার শীতে জাঁকিয়ে ঠাণ্ডা পড়বে। চলবে শৈত্যপ্রবাহ। এর জন্য দায়ী লা নিনা। এল নিনা পরিস্থিতি ইতিমধ্যেই শুরু হয়ে গিয়েছে। দুর্বল লা নিনা বর্তমানে প্রশান্ত মহাসাগরীয় বিষুব অঞ্চলে অবস্থান করছে বলে জানিয়েছে ন‍্যাশানাল ওশেনিক অ্যান্ড অ্যাটমসফেরিক অ্যাডমিনিস্ট্রেশন। লা নিনার জন্য চলতি বছরে অক্টোবর - নভেম্বর মাসে বঙ্গোপসাগরে অনেক বেশি সাইক্লোন তৈরি হবে এবং গত শীতের তুলনায় হিমেল হাওয়া চলবে অনেক বেশি। আন্তর্জাতিক আবহাওয়া দফতরের ( আইএমডি ) পূর্বাভাসে একথা বলা হয়েছে। আবহাওয়া দফতরের ডিজি মৃত্যুঞ্জয় মহাপাত্র একথা জানান।
    আগেই অনুমান ছিল, তাপমাত্রার অস্বাভাবিক বৃদ্ধির সঙ্গে সঙ্গে জলবায়ুর অস্থির পরিবর্তন ঘটবে। আর ঠিক তেমনটাই ঘটতে চলেছে। জাতীয় বিপর্যয় মোকাবিলা কর্তৃপক্ষ আয়োজিত ওয়েবিনারে বক্তব্য রাখতে গিয়ে আবহাওয়া দফতরের ডিজি বলেন, " শীত, গ্রীষ্মের তীব্রতার জন্য দায়ী লা নিনা এবং এল নিনো। লা নিনা যেখানে হিমেল বাতাস তৈরির জন্য উপযুক্ত, এল নিনো সেখানে তাপমাত্রা ও গরম বাড়িয়ে তোলে। ডিসেম্বর থেকে ফেব্রুয়ারি কীরকম শীত পড়বে আন্তর্জাতিক আবহাওয়া দফতর প্রতিবছর নভেম্বরেই পূর্বাভাস দিয়ে থাকে। লা নিনায় নির্ভর করে প্রশান্ত মহাসাগরের জল কতটা ঠাণ্ডা হয়ে হিমশৈলের রূপ নেবে এবং এল নিনো মাঝে মাঝেই প্রশান্ত মহাসাগরের তাপমাত্রা ও সমুদ্রপৃষ্ঠের বায়ুচাপের তারতম্য ঘটায়। জলবায়ুর প্রকৃতি নিয়ন্ত্রণকারী এই কারণ দুটি ভারতে বর্ষার গতিপ্রকৃতির উপরেও প্রভাব ফেলে। গতবছর শীতে অনেক বেশি সময় চলা শৈত্যপ্রবাহ এবং চলতি বছরে প্রায় ৯ শতাংশ অতিরিক্ত বৃষ্টি, এর উদাহরণ বলে উল্লেখ করেন আবহাওয়া দফতরের ডিজি।