বুধবার, অক্টোবর 21, 2020

গগনযানে সুন্দরী ‘ব্যোমমিত্র’
গগনযানে সুন্দরী ‘ব্যোমমিত্র’

গগনযানে সুন্দরী ‘ব্যোমমিত্র’

  • scoopypost.com - Jan 22, 2020
  • দেখতে ভালই।কথাবার্তায় তুখোড়। একবার যা দেখে স্মৃতিতে আটকে যায়। নাম তার ব্যোমমিত্র (Vyommitra)। ইসরোর (ISRO) গগনযানের (Gaganyaan) প্রথম যাত্রী।

    হাত, কোমর, মাথা-থাকলেও ব্যোমমিত্রর পা নেই।তবে ইচ্ছেমতো শরীর এদিক-ওদিক বাঁকাতে পারে সে। ভাবছেন প্রতিবন্ধী? আসলে গগনযানের নতুন যাত্রী ব্যোমমিত্র হিউম্যানয়েড অর্থাৎ রোবট। গড়নে মহিলাদের মতোই। একঝলক দেখলে মানুষ বলে ভুল হতেই পারে।

    গগনযানের চার জন মহাকাশচারী যাতে সুরক্ষিত ভাবে গিয়ে ফিরে আসতে পারেন, সে জন্য মানুষ পাঠানোর আগে পরীক্ষামূলকভাবে পাঠানো হবে ব্যোমমিত্রকে।সেই মহাকাশে গিয়ে সবদিক খতিয়ে দেখবে। সেই মতো বার্তা পাঠাবে। সবদিক ঠিক করে তবে মহাকাশচারীদের নিয়ে যাত্রা করবে গগনযান।

    ইসরোর চেয়ারম্যান কে শিবন জানিয়েছেন গগনযানে চার বায়ুসেনার অফিসার যাবেন। তাঁরা পাইলট হিসাবে অত্যন্ত দক্ষ। রাশিয়ার মহাকাশ সংস্থায় তাঁদের বিশেষ প্রশিক্ষণও হবে। তবে মহাকাশযানে মানুষ পাঠানোর আগে নিরাপত্তার দিকটাও দেখতে চান তাঁরা। তাই গগনযানে চার মহাকাশচারীর যাওয়ার আগে পরীক্ষামূলকভাবে যান পাঠানো হবে। তাতেই থাকবে ব্যোমমিত্র।চলতি বছরের শেষেই গগনযানের পরীক্ষামূলক উৎক্ষেপণের প্রস্তুতি নিচ্ছে ইসরো। যেহেতু গগনযানের চার মহাকাশচারী পুরুষ তাই হিউম্যানয়েড রোবটকে মহিলার অনুকরণে করা হয়েছে।ব্যোমমিত্রকেই পরীক্ষামূলক উৎক্ষেপনে মহাকাশে পাঠানো হবে।

    এই ব্যোমমিত্র কিন্তু শুধু সুন্দরী নয়, অত্যন্ত চটপটেও। শূন্য মাধ্যাকর্ষন শক্তিতে মহাকাশযানে কী বদল হচ্ছে, কোনও বিপদ রয়েছে কিনা, সবই সে ইসরোকে জানাবে।

    কে শিবন জানিয়েছেন, মহাকাশে মানুষ পাঠানোই ইসরোর একমাত্র লক্ষ্য নয়। মহাকাশে নিজস্ব মহাকাশ কেন্দ্র করতে চায় ভারত।২০২২ সালে গগনযান মিশন সফল হলে ভারত হবে চতুর্থ দেশ, যে দেশ থেকে মানুষ গিয়ে মহাকাশে থাকবে।এর আগে এই মিশন সফল করতে পেরেছে আমেরিকা, রাশিয়া ও চিন।

    মহাকাশ গবেষণা এগিয়ে নিয়ে যেতে ভারত-রাশিয়ার চুক্তি হয়েছে।গগনযানের সাফল্যের জন্য ভারতকে সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিয়েছে রাশিয়া। সেখানকারই মহাকাশ সংস্থায় বিশেষ প্রশিক্ষণ হবে গগনযানের জন্য বাছাই করা চার জনের।হাতে-কলমে তাঁদের প্রশিক্ষণ দেওয়া হবে।