মঙ্গলবার, নভেম্বর 24, 2020

স্তনদুধ বেচে স্বাচ্ছন্দ্য সংসারে
স্তনদুধ বেচে স্বাচ্ছন্দ্য সংসারে

স্তনদুধ বেচে স্বাচ্ছন্দ্য সংসারে

  • scoopypost.com - Oct 18, 2020
  • ফ্লোরিডার জুলি ডেনিস নিজের স্তনদুধ বেচে সংসারে স্বাচ্ছন্দ্য এনেছেন। ৩২ বছরের প্রাথমিক স্কুল কর্মী জুলি অবশ্য এরমধ্যে সমালোচনার কিছু দেখেন না। অনলাইনে বিজ্ঞাপন দিয়ে মাসে ১৫ হাজার লিটার স্তনদুধ বিক্রি করছেন। তাঁর কাছে ব‍্যাপারটা চাকরির মতোই। সারোগেসির মাধ্যমে ইতমধ্যে তিনি দুটি সন্তানের জন্ম দিয়েছেন। সাধারণত সারোগেসির মাধ্যমে সন্তান জন্মের পর কিছু সমস্যা হয়। কিন্তু তাঁর দাবি, " আমার স্বাস্থ্য মজবুত এবং গর্ভাশয় খুবই ভালো। দ্বিতীয় সন্তান ধারণের পর থেকে বুকে প্রচুর দুধ। অথচ ৬ মাসের পর শিশুর সেভাবে স্তনদুধের দরকার পড়ে না। অথচ অনেক শিশুর তা দরকার রয়েছে। তাই অনলাইনে বিক্রির বিজ্ঞাপন দিয়েছি। "
    গর্ভ ভাড়ার পাশাপাশি স্তনদুধ এখন মিলছে নগদ অর্থের বিনিময়ে। অনেকে অনলাইনে এই বিজ্ঞাপন দেখে সমালোচনা শুরু করেছেন। কিন্তু জুলি ডেনিস বিষয়টি চাহিদা যোগানের আধারেই দেখছেন। সেজন্য তাঁর কোনও সঙ্কোচ নেই। তাঁর কথায়, " বুকে এত দুধ খামোখা নষ্ট করার মানে হয় না। মাসে ১৫ হাজার লিটার দুধ ফ্রিজে স্টোর করে আইসপ‍্যাকে করে পাঠানো হয়। আর সদ‍্যজাতদের জন্য স্তনদুধের ক্রেতারা অনেকে দরদস্তুরও করেন। সূতরাং বিষয়টি চাহিদা যোগানের নিরিখে দেখাই ভালো। "
    পেশায় প্রাথমিক স্কুলের কর্মী জুলি ডেনিস অবশ্য জানিয়েছেন, " স্তন দুধ বেচে বিরাট ধনী হয়তো হইনি তবে এর থেকে যা আয় তা যথেষ্ট। সংসারে অনেকটাই স্বাচ্ছন্দ্য এনেছে। "
    রক্ষণশীলরা মা, মাতৃদুগ্ধ সম্পর্কে আবেগপ্রবণ তাই অনলাইনে মাতৃদুগ্ধ বিক্রিতে সমালোচনায় মুখর। কিন্তু সংসারকে বুক দিয়ে যাকে বলে আগলানো জুলি ডেনিস নিজের সংসারের জন্য সেই কাজটাই করছেন বলে দাবি করেছেন‌।