শুক্রবার, অক্টোবর 30, 2020

বিশ্বে ধনসম্পদের বৈষম্য: অক্সফ্যাম
বিশ্বে ধনসম্পদের বৈষম্য: অক্সফ্যাম

বিশ্বে ধনসম্পদের বৈষম্য: অক্সফ্যাম

  • scoopypost.com - Jan 20, 2020
  • নজিরবিহীন বৈষম্য ধনসম্পদের বন্টনে! যাকে কেন্দ্র করে হতাশ আন্তর্জাতিক  সংগঠন অক্সফ্যাম।

    বিশ্বের মোট  জনসংখ্যার  প্রায়  ৬০ শতাংশের কাছে যে পরিমাণ অর্থ রয়েছে,  মাত্র ২,১৫৩ জন ধনকুবেরের কাছে সেই পরিমাণ অর্থ রয়েছে। ভারত, চিন, শ্রীলঙ্কা, বাংলাদেশ, ইন্দোনেশিয়ায় এ ধরনের বৈষম্য আরও প্রবল। অক্সফ্যামের সমীক্ষা বলছে, ভারতীয় জনসংখ্যার নিরিখে ৭০ শতাংশ মানুষের  বা ৯৫কোটি ৩লাখ মানুষের কাছে যে পরিমাণ অর্থ রয়েছে, তার চেয়ে চারগুন বেশি  অর্থ রয়েছে মাত্র ১ শতাংশ  ভারতীয় ধনকুবেরের কাছে। শুধু তাই নয়, ২০১৮-১৯ সালে দেশের মোট বাজেটের ্পরিমাণ ছিল ২৪,৪২ হাজার ২০০কোটি টাকা। সেই পরিমাণ অর্থের চেয়েও বেশি অর্থ আছে দেশের মাত্র ৬৩জন ধনকুবেরের কাছে।

    রিপোর্ট বলছে, বিশ্বে মোট সম্পদের পরিমাণ ২৫৫ লক্ষ ৭০ হাজার কোটি ডলার। আর গোটা বিশ্বে জনসংখ্যা প্রায় ৭৫০ কোটি। এদের মধ্যে মাত্র ৭ কোটি ৫০ লক্ষ মানুষের কাছে রয়েছে ১২৮ লক্ষ কোটি ডলার। আর বাকি ১২৮ লক্ষ কোটি ডলার রয়েছে  প্রায় ৭৪৩ কোটি মানুষের হাতে।

    সেই নিরিখে অন্যান্য দেশের তুলনায় ভারতে বৈষম্য  সব থেকে বেশি। সমীক্ষায় আর্থিক বৈষম্য দূর করার ক্ষেত্রে যে ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে তাতে অসন্তোষ প্রকাশ করা হয়েছে। সমীক্ষায় স্পষ্ট করে বলা হয়েছে কোনও সরকারই সেই লক্ষ্যে কাজ করে না।

    এক ঝলকে প্রথম ৮জন ধনকুবেরের নামের তালিকা:

    ১. মুকেশ অম্বানি-১৯৩০ কোটি ডলার।

    ২. সানফার্মার দিলীপ সাঙ্ঘভি-১৬৭০ কোটি ডলার।

    ৩. আজিম প্রেমজি-১৫০০ কোটি ডলার।

    ৪. শিব নাদর-১১১০ কোটি ডলার।

    ৫. সাইরাস পুনাওয়ালা-৮৫০ কোটি ডলার।

    ৬. লক্ষ্মী মিত্তল-৮৪০ কোটি ডলার।

    ৭. উদয় কোটাক-৬৩০ কোটি ডলার।

    ৮. কুমারমঙ্গলম বিড়লা-৬১০ কোটি ডলার।    

    ওয়ার্ল্ড ইকনমিক ফোরামের (ডব্লুইএফ) বার্ষিক সভা শুরুর আগে আন্তর্জাতিক  সংগঠন অক্সফ্যাম এই সমীক্ষা প্রকাশ করেছে। অক্সফ্যামের রিপোর্ট আরও বলছে, গত ২০ বছরে চিন, ভারত, বাংলাদেশ, শ্রীলঙ্কা, ইন্দোনেশিয়ায় জনসংখ্যার নিরিখে ১০ শতাংশ মানুষের উপার্জন ১৫ শতাংশ বেড়েছে। অন্যদিকে, দরিদ্র মানুষের আয় ১৫ শতাংশ হারে কমে গিয়েছে। এ ধরনের ধনবৈষম্য পৃথিবীতে আগে কখনও দেখা যায়নি।