মঙ্গলবার, নভেম্বর 24, 2020

তৃতীয় বিশ্বযুদ্ধ আসন্ন !
তৃতীয় বিশ্বযুদ্ধ আসন্ন !

তৃতীয় বিশ্বযুদ্ধ আসন্ন !

  • scoopypost.com - Oct 02, 2020
  • বিতর্কিত নাগর্নো - কারাবাখ অঞ্চল নিয়ে আর্মেনিয়া আজারবাইজানের যুদ্ধ এবার কার্যত তৃতীয় বিশ্বযুদ্ধের দামামা বাজাচ্ছে। রবিবার ২৭ সেপ্টেম্বর থেকে পড়শি দুই দেশের মধ্যে ভয়ঙ্কর যুদ্ধ শুরু হয়েছে। এদিন পর্যন্ত সংঘর্ষ বিরতির কোনও লক্ষণ নেই। বৃহস্পতিবার আর্মেনিয়ার তরফে বিবৃতিতে বলা হয়েছে, আজারবাইজানের ৪ টি ড্রোন তারা নিষ্ক্রিয় করেছে। আর্মেনিয়ার অভিযোগ আজারবাইজান ড্রোনগুলির মাধ্যমে বোমা পাঠিয়েছিল। এদিকে জার্মানি সহ ইউরোপিয় ইউনিয়নের সদস্য দেশগুলো যুদ্ধরত দুদেশকেই অবিলম্বে যুদ্ধ বন্ধ করার আবেদন জানিয়েছে। একযোগে বিবৃতি দিয়ে একই আবেদন জানিয়েছে আমেরিকা, রাশিয়া এবং ফ্রান্স। সেইসঙ্গে দুদেশকে আলোচনায় বসার উপদেশ দিয়েছে। যদিও রাশিয়ার বিরুদ্ধে আজারবাইজানের অভিযোগ, আর্মেনিয়াকে মদত দিচ্ছে রাশিয়া। আর্মেনিয়ায় রাশিয়ার সামরিক ঘাঁটিও রয়েছে। যদিও রাশিয়া ইতিমধ্যেই হুমকি দিয়েছে, তুরস্ক আজারবাইজানকে ইন্ধন জোগালে তারা হাত গুটিয়ে বসে থাকবে না। এদিকে ভূ - কৌশলগত কারণে তুরস্ক আজারবাইজানের পক্ষ নিয়েছে। তুরস্কের মতে, আর্মেনিয়াই ওই অঞ্চলে শান্তি বজায়ের ক্ষেত্রে অন্তরায় এবং হুমকি দিচ্ছে। তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রিচেপ তাইয়েপ এর্দোয়ানো বলেছেন, " আজারবাইজানের উচিৎ অবিলম্বে তাদের ভূখণ্ড আর্মেনিয়ার কবল থেকে মুক্ত করা। " পাকিস্তানও আজারবাইজানের হয়ে আর্মেনিয়ার বিরুদ্ধে লড়াই করতে সেনা পাঠিয়েছে। আর্মেনিয়ার বিরুদ্ধে এই যুদ্ধে আজারবাইজানকে অস্ত্র যোগাচ্ছে ইজরায়েলও।
    পূর্ব ইওরোপের ককেশাস পর্বতমালায় নাগর্নো কারাবাখ অঞ্চলটি বিরোধ আজকের নয়। ১৯৯১ সালে সোভিয়েত ইউনিয়নের ভাঙনের পর সদ‍্য স্বাধীন আর্মেনিয়া ও আজারবাইজান এই অঞ্চলের হক নিয়ে বিরোধে জড়ায়। আন্তর্জাতিক নিয়মানুযায়ী ভূখণ্ডগতভাবে বিতর্কিত নাগর্নো কারাবাখ অঞ্চলটি আজারবাইজানের। কিন্তু কয়েক হাজার আজেরি জনজাতির উপর আধিপত্য কায়েম করে ওই এলাকা নিজেদের দখলে রেখেছে আর্মেনিয়া। সামরিক দিক থেকে তুলনামূলকভাবে কম শক্তিশালী আজারবাইজানের উপর আর্মেনিয়ার হামলা নতুন নয়। দু'দশকে এর আগে বারতিনেক সংঘর্ষ, হামলা হয়েছে। আর্মেনিয়ার একগুঁয়েমির জন্য সমঝোতা গড়ে উঠতে পারেনি। আর্মেনিয়া শুধু বিতর্কিত নাগর্নো কারবাখ অঞ্চলই নয়, আজারবাইজানের ২০ শতাংশ এলাকা দখল করে নিয়েছে বলে অভিযোগ। এদিকে যুদ্ধে তুরস্কের মদত রয়েছে বলে যেমন রাশিয়া মনে করে তেমনি তুরস্কের সঙ্গে আমেরিকার সম্পর্ক রীতিমতো খারাপ। ফলে আজারবাইজানের পক্ষে তুরস্ক, পাকিস্তান দাঁড়ানোয় বিপক্ষ আর্মেনিয়ার পক্ষে পুরোদমে রাশিয়া এমনকী আমেরিকার দাঁড়ানোর সম্ভাবনা তৈরি হচ্ছে। আর দুই দেশের ভূখণ্ড নিয়ে চলা দু'দশকের সমস্যাকে কেন্দ্র করে অন‍্যান‍্য রাষ্ট্রের যুদ্ধে জড়িয়ে পড়া অবশ‍্যম্ভাবী হয়ে উঠলে তৃতীয় বিশ্বযুদ্ধ ঠেকানো যাবে না।
    ক্লেয়ার ভয়ান্ট হোরাসিও ভিলোগাস নামের এক ভবিষ্যৎবক্তা এর আগে ভবিষ্যৎবাণী করেছিলেন, মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের হাত ধরে তৃতীয় বিশ্বযুদ্ধ শুরু হবে।
    সিরিয়ার রাসায়নিক হামলা পরবর্তী সময়কালে ডোকলাম, গালওয়ানে চিনের চোখরাঙানি, ভারতের সঙ্গে সংঘর্ষ এবং নেপাল, ভুটান, বাংলাদেশ, শ্রীলঙ্কায় চিনের সক্রিয়তা, কাশ্মীর প্রশ্নে ভারত পাকিস্তানের দীর্ঘমেয়াদি বিরোধ, যুদ্ধ, জঙ্গিহানা, ইরান, উত্তর কোরিয়ার পরমাণু গবেষণা সহ বহু আন্তর্জাতিক সমস্যা আর্মেনিয়া আজারবাইজানের যুদ্ধের পরিপ্রেক্ষিতে তৃতীয় বিশ্বযুদ্ধের রূপ না দেয়, আশঙ্কা তৈরি হয়েছে আন্তর্জাতিক মহলে।