বুধবার, নভেম্বর 25, 2020

শরীর বদলে গিনেসে নাম
শরীর বদলে গিনেসে নাম

শরীর বদলে গিনেসে নাম

  • scoopypost.com - Oct 25, 2020
  • মানুষের কত বিচিত্র শখ থাকে। এমনকী শখ থাকে খোদার উপর খোদকারি করার। কেউ কেউ অস্ত্রোপচার করে বদলে ফেলে লিঙ্গপরিচয়। কিছু মানুষ আবার শরীরে ট‍্যাটু আঁকিয়ে আর পিয়ার্সিং অর্থাৎ ছিদ্র করে রিং,নোস পিন বা বিভিন্ন আকৃতির জিনিস শরীরের নানা অঙ্গে গাঁথে। এধরনের শখকে বলা হয় বডি মডিফিকেশন। কিন্তু শরীরে বাহ‍্যিক এই বদল আনা এবং বহন করা বেশ কষ্টকর। শরীরের উপর একরকম পীড়নও। তাও মানুষের একটা ট‍্যাটু এবং পিয়ার্সিং জনপ্রিয়। সেলেবদের একাংশও এধরনের বডি মডিফিকেশন করে থাকেন।
    জার্মানির রল্ফ বুছলোজ নিজের শরীরে ৫১৬ টি পিয়ার্সিং এবং গা ভর্তি ট‍্যাটু আঁকিয়ে বিশ্ব রেকর্ড করে ফেলেছেন। গিনেস রেকর্ডধারী রল্ফের শরীরে কোথায় না পিয়ার্সিং নেই। নাক, কান, ভ্রু, ঠোঁট, জিভে পিয়ার্সিং এমনকী মাথায় দুটো সিংও রয়েছে। রয়েছে গা ভর্তি ট্যাটু। আর এতকিছুর পরেও তিনি জানিয়েছেন, এখনও তাঁর বডি মডিফিকেশন সম্পূর্ণ হয়নি। পিয়ার্সিং এখনও বাকি আছে।
    একটি টেলকম সংস্থার তথ্য প্রযুক্তি কর্মী রল্ফ ২০ বছর আগে শরীরে প্রথম ট‍্যাটু আঁকান। এরপর থেকে বডি মডিফিকেশন তাঁর নেশা হয়ে দাঁড়ায়। এখন শরীরে ৫১৬ - র বেশি পিয়ার্সিং থাকলেও এখনই থামতে চান না। এরপর শরীরে আরও পিয়ার্সিং করাতে চান তিনি।
    রল্ফ জানিয়েছেন, বডি মডিফিকেশনে তাঁর শারীরে বাহ‍্যিক বদল এসেছে ঠিকই কিন্তু তিনি একইরকম আছেন। তাঁর কথায়, " আমার বাইরেটাই বদলেছে। আমি বদলাইনি। আমি আগের মতোই আছি। "

    View this post on Instagram

    Photo by @daniel__milton

    A post shared by Rolf Buchholz (@robuchholz) on