বৃহস্পতিবার, জানুয়ারী 21, 2021

আইএসএলের ভরসা বায়োবাবল
আইএসএলের ভরসা বায়োবাবল

আইএসএলের ভরসা বায়োবাবল

  • scoopypost.com - Nov 20, 2020
  • করোনা আবহের মাঝেই অবশেষে ভারতের মাটিতে আয়োজিত হতে চলেছে প্রথম কোনও প্রতিযোগীতামূলক খেলা। আইএসের হাত ধরেই কার্যত ২০২০ সালে ফিরছে ভারতীয় ফুটবল। তবে এই অতিমারী পরিস্থিতীতে কতটা সুরক্ষা বজায় রেখে এই আইএসএল সম্পন্ন করা সম্ভব তা নিয়েই চিন্তায় ক্রীড়াবিদরা। তবে আইএসএলকে আশার আলো দেখাচ্ছে সফল আইপিএলের জৈব সুরক্ষা বলয়।
    করোনা আবহে ক্রীড়া কর্মসূচী আয়োজন করা প্রায় অনিশ্চিত ছিলই বলা চলে। তাই ক্রীড়াক্ষেত্রকে মূল স্রোতে ফেরাতে প্রথম থেকেই গুরুদ্বায়ীত্ব পালন করেছেন কেন্দ্রের ক্রীড়া দফতর। বিদেশের ভঙ্গিমায় ভারতীয় ক্রীড়া ক্ষেত্রে পরিচয় করানো হয়েছে বায়োবাবলের। তা সফলও হয়েছে আরবের মাটিতে। এবার সেই জৈব সুরক্ষা বলয়ের উপর ভরসা রেখেই গোয়ার মাটিতে আইএসএলের আসর বসাতে চলেছে কেন্দ্রীয় ক্রীড়ামন্ত্রক। তবে প্রশ্ন একটাই, আরবের মাটিতে সফল হলেও ভারতের মাটিতে কি সফল হতে পারবে এই অদৃশ্য বেলুন? উত্তরের বিশ্লেষণে না গিয়ে একবার দেখে নেওয়া যাক কি থাকছে আইএসএলের বায়োবাবলের রুলস অ্যান্ড রেগুলেশনস...


    • গোয়ায় পৌঁছে প্রত্যেক খেলোয়াড় ও সাপোর্টিং স্টাফকে থাকতে হবে ১৪ দিনের কোয়ারেন্টাইনে
    • দেখা করা যাবে না পরিবারের সঙ্গে বা কোনও বন্ধুদের সঙ্গে
    • হোটেল থেকে টিম বাস ছাড়া বেরোনো যাবে না কোনও যায়গায়
    • হোটেলের বাইরের খাবারে নিষেধাজ্ঞা
    • প্রত্যেকের প্রতিদিন করোনা পরিক্ষা করানো হবে
    • সামান্য অসুস্থ বোধ করলে তাকে যেতে হবে কোয়ারেন্টাইনে
    • ফুটবল বডি কন্টাক্ট গেম, তবে গোলের পর বা কোন সেলেব্রশনে হাত মোলানো বা জরিয়ে ধরা যাবে না
    • মাঠে থুথু ফেলায় ঠাকছে নিষেধাজ্ঞা
    • সমর্থকশূন্য মাঠে খেলা হবে এবং টিম বাসের বা হোটেলের সামনে সমর্থকদের আসতে দেওয়া যাবে না
    • জৈব সুরক্ষা বলয়ের নিয়ম ভঙ্গ করলে সেই খেলোয়াড়কে বা স্টাফকে জরিমানা ও শাস্তির সন্মুখীন হতে হতে পারে, এমনকি সাসপেন্ড পর্যন্ত করা হতে পারে




    এই নিয়মাবলির মধ্যে দিয়েই আজ আইএসএলের প্রথম ম্যাচে মুখোমুখি হচ্ছে শেষ বারের চ্যাম্পিয়ন এটিকে ও মহোনবাগানের সংযুক্ত দল এটিকে মোহনবাগান ও শেষ বার মোহনবাগানকে আইলিগ জয়ী কোচ কিবু ভিকুনার নেতৃত্বে গড়ে ওঠা কেরালা ব্লাস্টার্স। এটিকের দিকে পাল্লা ভারী থাকলেও কিবুকে সন্মানের চোখেই দেখছে রয় কৃষ্ণারা। তবে শেষ হাঁসি কার মুখে ফুটবে তা বোঝা যাবে রাত ৭টায় খেলা শুরুর পর।