রবিবার, অক্টোবর 25, 2020

কৃত্রিম কিডনি বাঁচাবে প্রাণ, আবিষ্কার শুভ রায়ের
কৃত্রিম কিডনি বাঁচাবে প্রাণ, আবিষ্কার শুভ রায়ের

কৃত্রিম কিডনি বাঁচাবে প্রাণ, আবিষ্কার শুভ রায়ের

  • scoopypost.com - Dec 22, 2019
  • কিডনি প্রতিস্থাপনের জন্য ডোনার খোঁজার দিন শেষ। এবার কৃত্রিম কিডনি তৈরি করে বিশ্বকে চমক দিলেন মার্কিন প্রবাসী বাঙালি বিজ্ঞানী শুভ রায়।

    দীর্ঘ পরীক্ষা নিরীক্ষায় কৃত্রিম কিডনি তৈরি করেছেন তিনি। ইতিমধ্যে পরীক্ষামূলকভাবে সেই কিডনি প্রতিস্থাপনও হয়েছে একাধিক রোগীর শরীরে।মিলেছে সাফল্য।এই সাফল্যই সাড়া জাগাচ্ছে চিকিৎসা বিজ্ঞানে।কারণ, কৃত্রিম কিডনি প্রতিস্থাপনের খরচও তুলনায় কম। ফলে, কৃত্রিম কিডনি বাজারে এলে মধ্যবিত্তের নাগালে আসবে কিডনির অসুখের চিকিৎসা। চলতি বছরেই এই কিডনি বাজারে আনার চেষ্টা চলছে

    সাম্প্রতিক জীবনযাপন, ধূমপান, অতিরিক্ত মদ্যপান, ফাস্ট ফুড, দূষণ সমস্ত কিছুর জেরেই বাড়ছে কিডনির অসুখ।কিন্তু কিডনি এমন অঙ্গ যে খারাপ হলে কিছুই করার থাকে না। কেউ কিডনি দান করলে তবেই প্রতিস্থাপন করা যায়। সেক্ষেত্রে কিডনি দানও সহজ নয়। রক্তের গ্রুপ ও অন্যান্য অত্যাবশ্যকীয় জিনিস মিলতে হবে। আবার কিডনি প্রতিস্থাপনের পরও অনেক সময় গ্রহীতার শরীর তা নিতে পারে না। তাছাড়া এই ধরনের অপারেশনে ঝুঁকি তো থাকেই তা ব্যায়বহুলও। তাছাড়া কিডনি বিকল হলে ডায়ালিসিসও যেথষ্ট সমস্যাজনক। তবে এই সমস্ত সমস্যার সমাধান করতে পারবে বাংলাদেশের বিজ্ঞানী শুভ রায়ের কৃত্রিম কিডনি।

    ইঞ্জিনিয়ার শুভ রায় বর্তমানে ক্যালিফোর্নিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ে গবেষণা করছেন। বছর দশেক আগে ৪০ অধ্যাপককে নিয়ে গবেষণা শুরু করেছিলেন শুভ রায়। তাঁর এই যন্ত্র বা কৃত্রিম কিডনি মানুষের বিকল কিডনির জায়গায় লাগিয়ে দিলেই হবে। এটা অনেকটা কাপের মতো। এখানেই আসবে শরীরের দূষিত রক্ত।কাপে থাকবে সিলিকনযুক্ত সূক্ষ পর্দা যা ছাঁকনির কাজ করবে। পাশাপাশি হরমোনের ভারসাম্যর ক্ষেত্রেও এই যন্ত্র কাজ করবে। আমেরিকার কয়েক হাজার রোগীর দেহে কৃত্রিম কিডনি সফলভাবে লাগানো হয়েছে।

    জানা গিয়েছে শুভ রায়ের জন্ম চট্টগ্রামে। পাঁছ বছরে চিকিৎসক বাবার কার্যসূত্রে উগান্ডায় যাওয়া।এখন তিনি আমেরিকার বাসিন্দা।কম্পিউটার বিজ্ঞান, পদার্থ বিদ্যা গণিতে গ্র্যাজুয়েশন করেছেন তিনি আমেরিকার ওহাইওর মাউন্ট ইউনিয়ন কলেজ থেকে।২০০১ সালে তিনি পিএইচডি করেন।তবে ১৯৯৮ থেকে তিনি ক্লিভল্যান্ডের ক্লিনিকে বায়োমেডিক্যাল ইঞ্জিনিয়ার হিসেবে কাজ যোগ দেন। সম্প্রতি ক্যালিফোর্নিয়ায় কাজ করছেন তিনি। শুভ রায়ের পরের লক্ষ্য কৃত্রিম অগ্ন্যাশয় বানানো।