সোমবার, নভেম্বর 30, 2020

বছর শেষে ভারতে রাশিয়ার ভ্যাকসিন
বছর শেষে ভারতে রাশিয়ার ভ্যাকসিন

বছর শেষে ভারতে রাশিয়ার ভ্যাকসিন

  • scoopypost.com - Sep 16, 2020
  • রাশিয়ার স্পুটনিক ভি ভ্যাকসিন পাচ্ছে ভারত। বছর শেষেই এসে যাবে প্রায় দশ কোটি ডোজ। রাশিয়া ভারতের ডঃ রেড্ডিজ এর সঙ্গে এই বিষয়ে চুক্তি করেছে।  স্পুটনিক ভি ভ্যাকসিনের তৃতীয় পর্যায়ের ট্রায়াল এবং তা সরবরাহের জন্য এই চুক্তি হয়েছে। রাশিয়ার ডাইরেক্ট ইনভেস্টমেন্ট ফান্ড বা আরডিআইএফ সূত্রে এখবর জানানো হয়েছে। বুধবার তারা এক সাংবাদিক বিবৃতি দিয়ে এই চুক্তির কথা জানিয়েছে। ভারতীয় নিয়ন্ত্রক সংস্থার ছাড়পত্র পাওয়ার পরেই এই ভ্যাকসিন পাঠানো হবে।

    রাশিয়ার আরডিআইএফের সি ই ও, কিরিল দিমিত্রিভ জানিয়েছেন, ভারতের ডঃ রেড্ডিজ ল্যাবরেটরির সঙ্গে চুক্তিবদ্ধ হয়ে তারা খুব খুশি। তিনি বলেন বিশ্বে সবচেয়ে বেশি কোভিড আক্রান্ত দেশগুলির একটি হল  ভারত। দিমিত্রিভ বলেন, আমরা আশা করি আমাদের ভ্যাকসিন ভারতকে কোভিডের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে খুব সাহায্য করবে।  

    অন্যদিকে ডঃ রেড্ডিজ ল্যাবরেটরির কো চেয়ারম্যান জি ভি প্রসাদ জানান, রাশিয়ার ভ্যাকসিন ভারতে আনতে পেরে তারাও খুব খুশি। প্রথম এবং দ্বিতীয় পর্যায়ের ট্রায়ালের  ফলাফল খুব ইতিবাচক। ভারতে তাঁরা তৃতীয় পর্যায়ের ট্রায়াল চালাবেন। ভারতীয় নিয়ন্ত্রক সংস্থার অনুমোদনের জন্য তাঁরা এই কাজ করবেন। কোভিডের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে এই ভ্যাকসিন যথেষ্ঠ কার্যকর হবে বলেই তিনি আশা করেন।

    স্পুটনিক-ভি, ভ্যাকসিন তৈরি করেছে গ্যামালিয়া ন্যাশানাল রিসার্চ ইন্সস্টিটিউট অব এপিডেমিওলজি অ্যান্ড মাইক্রোবাইলজি। ১১ অগাস্ট তারা এই ভ্যাকসিন প্রস্তুতের কথা ঘোষণা করে। রাশিয়ার স্বাস্থ্য মন্ত্রক এই ভ্যাকসিনকে অনুমোদন দিয়েছে এবং নথিভুক্ত করা হয়েছে। বিশ্বের প্রথম কোভিড-১৯ ভ্যাকসিন এই স্পুটনিক ভি।

    যদিও সারা বিশ্বের বহু বিশেষজ্ঞই এই ভ্যাকসিন এবং তার নিরাপত্তা ও কার্যকারিতা নিয়ে সংশয় প্রকাশ করেছে। রাশিয়া তাদের এই ভ্যাকসিন প্রস্তুতির পদ্ধতি প্রকাশ না করায় বিশ্বের বহু বিশেষজ্ঞই তা নিয়ে সন্দেহ প্রকাশ করেছে।

    এদিকে ভারতে প্রতিদিনই কোভিড সংক্রমণের সংখ্যা বেড়েই চলেছে। ইতিমধ্যেই তা ৫০ লাখের সীমা ছাড়িয়েছে। এই পরিস্থিতিতে ভারত সরকার জরুরি ভিত্তিতে কিছু ভ্যাকসিনকে ছাড়পত্র দেওয়ার কথা ভাবছে। বিশেষ করে বয়স্ক এবং যাঁদের অন্যান্য অসুখ রয়েছেতাঁদের জন্যই এই ভ্যাকসিনগুলিতে ছাড় দেওয়ার কথা ভাবা হচ্ছে।