বুধবার, অক্টোবর 21, 2020

বছর শেষেই কি কোভিড ভ্যাকসিন?
বছর শেষেই কি কোভিড ভ্যাকসিন?

বছর শেষেই কি কোভিড ভ্যাকসিন?

  • scoopypost.com - Oct 04, 2020
  • তবে কি বিশ্ববাসী বড়দিনের সুখবর পেতে চলেছেন? তা যদি সত্যি হয় তাহলে এর চেয়ে ভাল খবর আর কিছু হতে পারে না। সূত্রের খবর এ বছর শেষেই পাওয়া যেতে পারে অক্সফোর্ডের কোভিড ভ্যাকসিন। ব্রিটেনের এক সংবাদ পত্রে প্রকাশিত খবরে তেমনই ইঙ্গিত দেওয়া হয়েছে।  অক্সফোর্ড ইউনিভার্সিটির ‘ক্যান্ডিডেট চ্যাডক্স-১’ ভ্যাকসিনের কাজ চলছে একেবারে শেষ পর্যায়ে। ওষুধ প্রস্তুতকারী সংস্থা অ্যাস্ট্রাজেনকার সঙ্গে যৌথভাবে তারা এই ভ্যাকসিন তৈরি করছে। সংবাদপত্রে প্রকাশিত খবরে বলা হয়েছে এই ভ্যাকসিনের চূড়ান্ত পর্যায়ের কাজ চলছে। তার অর্থ ডিসেম্বরের শেষ নাগাদ তার ফল এসে যাবে। সরকারি সূত্রে জানা গেছে সেক্ষেত্রে ব্রিটিশ স্বাস্থ্য সংস্থা দ্রুত এই ভ্যাকসিনকে ছাড়পত্র দিয়ে দেবে। ছাড়পত্র পাওয়ার পর ছমাসের মধ্যেই ভ্যাকসিনের প্রোগ্রাম শুরু হয়ে যাবে।

    বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা আগেই জানিয়েছিল এ বছরের শেষেই হয়ত ভ্যাকসিন এসে যাবে। আগামি বসন্তে বাজারে একাধিক টিকা মিলবে। মার্কিন ভ্যাকসিন প্রস্তুতকারী সংস্থা মর্ডানা জানিয়েছে ২৫ নভেম্বর নাগাদ তারা ভাল খবর দিতে পারবে।তবে তারা স্পষ্ট করে দিয়েছে, আমেরিকায় নির্বাচনের আগে টিকা কোনওভাবেই সম্ভব নয়। নভেম্বরের গোড়াতেই মার্কিন মুলুকে ভোট। বিশ্বের সবচেয়ে বড় ভ্যাকসিন  প্রস্তুতকারী সংস্থা ‘গ্ল্যাক্সোস্মিথক্লাইন’ তারাও আশার ক্তহা শুনিয়েছে। তারা বলেছে, তাদের ভ্যাকসিনের ক্লিনিক্যাল ট্রায়ালে ভাল ফল পাওয়া গেছে।

    বিশ্বজুড়ে টিকা বা ভ্যাকসিন নিয়ে যেমন জোর কদমে কাজ হচ্ছে তেমনই বহু দেশই কিন্তু কোভিড রুখতে এখনও সামাজিক দূরত্ব এবং মাস্ক ব্যবহারের ওপরই বেশি জোর দিচ্ছে। ভারত সরকারও দেশে আনলক-৫ চালু করলেও এই সামাজিক দূরত্ব এবং মাস্ক ব্যবহার আবশ্যক করেছে।

    এদিকে রবিবারই কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রী হর্ষ বর্ধন জানিয়েছেন আগামি জুলাইয়ে দেশের ২৫ কোটি মানুষকে ভ্যাকসিন দেওয়ার লক্ষ্যে কাজ করছেন তাঁরা। দেশে সুস্থতার হার বাড়লেও দৈনিক সংক্রমণের হার কিছুতেই নিয়ন্ত্রণ করা যাচ্ছে না। এই অবস্থায় সরকার আগামি জুলাইতে ২৫ কোটি মানুষকে টিকাকরণের আওতায় আনতে চায়। তিনি বলেন ভ্যাকসিন যাতে নিরপেক্ষ ভাবে বিলি করা হয় সেদিকে নজর রাখছে সরকার।