রবিবার, এপ্রিল 18, 2021

ভ্যাকসিন এলেও বজায় রাখতে হবে সাবধানতা
ভ্যাকসিন এলেও বজায় রাখতে হবে সাবধানতা

ভ্যাকসিন এলেও বজায় রাখতে হবে সাবধানতা

  • scoopypost.com - Dec 03, 2020
  • আগামি সপ্তাহেই ব্রিটেনে কোভিড ভ্যাকসিন দেওয়ার কর্মসূচি শুরু হয়ে যাবে। এ খবরে সাড়া পড়ে গেছে সারা বিশ্বে। বাদ নেই ভারতও। এই ভ্যাকসিন নিয়ে আগ্রহ এমন পর্যায়ে পৌঁছেছে যে ভারত থেকে বহু মানুষ এখন ব্রিটেনে যেতে চাইছেন। সেখানে গিয়ে ভ্যাকসিন নেবেন তাঁরা। বিভিন্ন পর্যটন সংস্থা সূত্রে এ খবর পাওয়া যাচ্ছে।  

    এদিকে বিশ্বের তিন বড় ভ্যাকসিন প্রস্তুতকারী সংস্থার বিজ্ঞানীরা সাধারণ মানুষকে কিছু সাবধানবানী শুনিয়েছেন। তাঁরা বলছেন বিশ্বে ভ্যাকসিন এলেও কোভিড বিধি আমাদের আরও অনেকদিন পর্যন্ত মেনে চলতে হবে। মাস্ক পরা , স্যানিটাইজার ব্যাবহার করে এবং শরীরিক দূরত্ব বজায় রাখতে হবে আরও অনেক দিন। হয়ত বা আরও এক বছর। বিজ্ঞানীরা বলছেন ভ্যাকসিন এলেও তা পাওয়ার রাস্তা বেশ মন্থর। ফলে এই সময়কালে কোভিড বিধি মেনে চলতেই হবে। মোর্ডেনা, ফাইজার, অ্যাস্ট্রাজেনকা এবং জনসন অ্যান্ড জনসনের শীর্ষ আধিকারিকরা বিশ্ববাসীর উদ্দেশ্যে এই সতর্কবানী শুনিয়েছেন।

    ফাইজার কোম্পানির পক্ষে প্রফেসর রালফ রেনে বলেছেন, বিশ্বের বিভিন্ন দেশ থেকে তাঁরা তাঁদের ভ্যাকসিনের বিষয়ে একাধিক প্রশ্ন পাচ্ছেন। তাঁরা তাঁদের ট্রায়ালের তথ্য আদান-প্রদানে  রাজি আছেন। তবে ভারত সহ এই অঞ্চলের অন্য কোনও দেশ থেকে তাঁদের ভ্যাকসিন নিয়ে কোনও তথ্য চাওয়া হয়েছে কিনা সে প্রশ্নের জবাব দেন নি তিনি।ফাইজার তদের ভ্যাকসিন ব্যবহারের জন্য ইউ কে, ইউ এস এবং ইউরোপীয় মেডিসিন এজেন্সির কাছে তাঁদের ট্রায়ালের তথ্য জমা দিয়েছেন।

    ফাইজারের পাশাপাশি, অ্যাস্ট্রাজেনকা, মোর্ডেনা এবং জনসন অ্যান্ড জনসনের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে তারাও এই ভ্যাকসিন প্রস্তুতিতে উল্লেখযোগ্য ভাবে এগিয়েছে। অ্যাস্ট্রাজেনকার পক্ষ থেকে মেন প্যাঙ্গোলাস জানিয়েছেন, ২০২১ এর শেষেই তারা ৩বিলিয়ন ডোজ ভ্যাকসিন তৈরি করে ফেলবে।এই তিন সংস্থার সঙ্গে ওয়ার্ল্ড ইকনমিক ফোরামের এক ভার্চুয়াল বৈঠক হয়। সেখানে তাঁরা জানান ওই ৩বিলিয়ন ভ্যাকসিনের মধ্যে বেশ কয়েক মিলিয়ন আগামি বছরের  প্রথম ত্রৈমাসিকের মধ্যেই পাওয়া যাবে।  

    ভ্যাকসিনের ব্যবহার সম্পর্কে প্যাঙ্গোলাস জানিয়েছেন, এখন দুটো করে ডোজ নিতে হবে।অ্যাস্ট্রাজনকা তাদের তৃতীয় পর্যায়ের ট্রায়ালের রিপোর্ট ইউকে এবং ইউ এস আধিকারিকদের কাছে জমা দিয়েছে। এখন তাঁরা জরুরি ব্যবহারের অনুমতির জন্য অপেক্ষা করছে। তাদের ভারতীয় সহযোগী পুণের সিরাম সংস্থা এই অনুমতির জন্য ভারতীয় কর্তৃপক্ষের সঙ্গে যোগাযোগ রাখছে।