শুক্রবার, অক্টোবর 30, 2020

বিশ্ব ধ্বংস হলেও 'বরফচাপা' থাকবে কম্পিউটারের কোড
বিশ্ব ধ্বংস হলেও 'বরফচাপা' থাকবে কম্পিউটারের কোড

বিশ্ব ধ্বংস হলেও 'বরফচাপা' থাকবে কম্পিউটারের কোড

  • scoopypost.com - Nov 30, 2019
  • গ্লোবাল সিড ভল্ট শব্দটা অনেকেই হয়ত জানেন। এটি হল নরওয়েতে সেখানে বরফের নীচে একটা প্রকোষ্ঠ বানিয়ে তাতে প্রয়োজনীয় বীজপত্র সংরক্ষণ করে রাখা আছে। এতে টেম্পারেচার এতটাই নীচে থাকে যাতে ওই বীজের উৎপাদনশীলতা হাজার বিপর্যয় এমনকি আনবিক যুদ্ধ ঘটলেও নষ্ট হয়ে যায়না। এই ভল্টটি ‘গ্লোবাল সিড ভল্ট’ নামে পরিচিত বিশ্বের মানুষের কাছে।

    এখন থেকে কেবল মাত্র বীজই নয়, সংরক্ষণ করা হবে প্রয়োজনীয় সোর্স কোড ও সফটওয়্যারও। কিন্তু মাইক্রোসফ্টের গিটহাবের সমস্ত সোর্স কোড সংরক্ষণের এইরূপ নয়া চিন্তাভাবনা সাড়া পড়েছে গোটা দুনিয়ায়।

    ২০১৭ সালে “আর্কটিক ওয়ার্ল্ড আর্কাইভ” গ্লোবাল সিড ভল্টের কাছে একটি বাতিল কয়লাখনিতে বিভিন্ন তথ্যের ডিজিটাল রেকর্ড ও সিনেমাকে সংরক্ষণ করা শুরু করেছে। দেখাদিখি, মাইক্রোসফ্টও গিটহাবের সমস্ত সোর্স কোডকে ওই ভল্টে ডিজিটালি রেখে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

    বিশেষত ভবিষ্যতের জন্যই এমন উদ্যোগ মাইক্রোসফ্টের৷ ২০১৮ সাল থেকে গিটহাব বানিয়ে সমস্ত সোর্স কোডকে একজায়গায় করার সিদ্ধান্ত নিয়েছিল এই কোম্পানিটি। কোনো নিউক্লিয়ার যুদ্ধ, বা অন্য কারণে সমস্ত সফ্টওয়্যার হারিয়ে গেলেও তাকে পুনরুদ্ধার করার জন্যই এই উদ্যোগ।

    এই দুটি ভল্টই প্রাকৃতিক দিক থেকে পুরোপুরি সুরক্ষিত। সংরক্ষিত কোডগুলি দেখতে সিনেমার রিলের মত যা এনকোডিং করে ওই ভল্টে রাখা হয়েছে। পরিবেশের কথা মাথায় রেখে সমস্ত তথ্য সেখানে সংরক্ষণ করা হয়েছে। শুকনো ঠান্ডায় অর্থাৎ বর্তমান পরিস্থিতিতে এই কোডগুলি ২০০০ বছর ধরে একই রকম থেকে যাবে, দাবি মাইক্রোসফ্টের। এদিকে সাধারণ পরিবেশে এগুলোর আয়ু মাত্র ৭৫০ বছর।

    উত্তর মেরু থেকে কয়েকহাজার কিলোমিটার দূরে এই ভল্টে সুরক্ষিত থাকবে আগামী দিনের ডিজিটাল প্ল্যাটফর্ম। পৃথিবীর সমস্ত হার্ড ড্রাইভ নষ্ট হয়ে গেলেও অন্তত আরও কয়েকহাজার বছর টিকে থাকবে এই ভল্ট। তবে পুনরুদ্ধার করে আবার একই অবস্থায় ফিরিয়ে আনা কতখানি বাস্তবায়িত হবে তা কিন্তু সময়ই বলবে।