শুক্রবার, নভেম্বর 27, 2020

কালীপুজোয় নিরামিষ! তাহলে কুমড়োয় দিন ‘ধোঁকা’
কালীপুজোয় নিরামিষ! তাহলে কুমড়োয় দিন ‘ধোঁকা’

কালীপুজোয় নিরামিষ! তাহলে কুমড়োয় দিন ‘ধোঁকা’

  • scoopypost.com - Nov 14, 2020
  • কালীপুজোর দিনে বহু বাড়িতেই নিরামিষ খাওয়ার চল আছে। কিন্তু নিরামিষে পনির, আলুরদম, কোফতা যদি একঘেয়ে হয়ে থাকে তাহলে বরং বানিয়ে ফেলুন ধোকা। তবে ধোঁকা দিন আপনি, ‘কুমড়োর ধোঁকা’ দিয়ে।

    লাগবে- মিষ্টি কুমড়ো, ছোলার ডাল, আদা, কাঁচালঙ্কা, নুন, হলুদ, চিনি, ধনে-জিরে গুঁড়ো, কুঁচনো নারকেল

    রান্নার পদ্ধতি- ছোলার ডাল সারারাত ভিজিয়ে জল ঝরিয়ে কাঁচা লঙ্কা, আদা ও স্বাদমতো নুন মিশিয়ে বেটে নিন।

    কড়াইতে সরষের তেল দিন। তাতে কালোজিরে, হিং ও শুকনো লঙ্কা ফোড়ন দিয়ে ছোট ছোট করে কাটা খোসা ছাড়ানো কুমড়ো ভালো করে ভেজে নিন। নুন ও হলুদ দিন স্বাদমতো। অল্প জল দিয়ে কড়াই ঢাকা দিয়ে দিন কুমড়ো সেদ্ধ না হওয়া পর্যন্ত। সেদ্ধ হয়ে গেলে খুন্তি দিয়ে সেদ্ধ কুমড়ো ভালো করে মিশিয়ে নিন। এরপর দিয়ে দিন ছোলার ডাল। এই পর্যায়ে লাগবে স্বাদমতো চিনি। কুমড়ো সেদ্ধ ও ডাল বেশ কিছুক্ষণ নাড়াচাড়া করে মিশিয়ে একটি  বড় থালায় ঢেলে দিন।

    থালা বা পাত্রটা আগে থেকে ঘি বা তেল মাখিয়ে রাখুন। এবার কুমড়ো ও  ডালের মন্ডটা ছড়িয়ে ওপরটা সমান করে দিন। মিনিট ১৫ বাদে মণ্ডটা ঠান্ডা হলে বরফি বা চৌকো আকারে ধোঁকার মতো কেটে নিন ও তেলে ভেজে নিন।

    এবার বানাতে হবে ধোঁকার ডালনা। কড়াইতে তেল দিয়ে গোটা গরম মশলা ফোড়ন দিন। তাতে দিয়ে দিন কোড়ানো নারকেল। স্বাদমতো নুন, হলুদ, ধনে ও জিরে গুঁড়ো। দিয়ে দিন আদা বাটা। মশলা ভালো করে কষানো হলে দিন টমেটো পিউরি। যতক্ষণ না মশলা থেকে তেল ছাড়ছে ততক্ষণ কষতে থাকুন। তারপর দিয়ে দিন মাপমতো গরম জল। মশলা ও জল মিলেমিশে ফুটে উঠলে ভেজে রাখা কুমড়োর ধোঁকা ছেড়ে দিন। হাল্কা আঁচে ফুটে একটু ঘন হয়ে এলে ঘি ও গরম মশলা দিয়ে নামিয়ে নিন।