বুধবার, অক্টোবর 21, 2020

সন্ধেয় চায়ে ব্রেক...
সন্ধেয় চায়ে ব্রেক...

সন্ধেয় চায়ে ব্রেক...

  • scoopypost.com - Jan 10, 2020
  • শীতের সন্ধে। চা-কফির সঙ্গে টা চাইতো।আবহাওয়া যা খেল দেখাচ্ছে, তাতে শীতের লেজুড় হয়েছে বৃষ্টি।মারুন গুলি শীত-বৃষ্টিকে। বরং সুখাদ্য দিন জিভকে।

    সন্ধেয় চায়ে ব্রেকে হয়ে যাক...

    আলুর ললিপপ-


    চিকেন ললিপপ খেয়েছেন। এবার চটজলদি আলুর ললিপপ করে ফেলুন দেখি।লাগবে, সেদ্ধ আলু, পেঁয়াজ কুঁচি, আদা, রসুন বাটা, লঙ্কা গুঁড়ো, কাঁচা লঙ্কা কুঁচি, ধনেপাতা কুঁচি, চিলি ফ্লেক্স, ধনে গুঁড়ো, নুন, পাঁউরুটি গুঁড়ো, সাদা তেল, মেয়োনিজ, কাসুন্দি, নুন

    কী করে করবেন-আলু সেদ্ধ করে চটকে নিন। তার মধ্যে পেঁয়াজ কুঁচি, আদা, রসুন বাটা, ধনে গুড়ো, নুন, ধনেপাতা ও লঙ্কা কুঁচি, সামান্য লঙ্কাগুঁড়ো, স্বাদমতো নুন, পাঁউরুটির গুঁড়ো দিয়ে ভাল করে মেখে ছোট ছোট বল তৈরি করুন।আর একটি পাত্রে ময়দা জল দিয়ে গুলে নিন। আর একটি পাত্রে ব্রেড ক্রাম্ব নিয়ে মিশিয়ে নিন অল্প নুন, চিলি ফ্লেক্স (শুকনো লঙ্কা তাওয়ায় সেঁকে গুঁড়িয়ে নিন)ও ইটালিয়ান সিজলিং। এবার আলুর বলগুলো ময়দার গোলায় চুবিয়ে ব্রেড ক্রাম্ব মাখিয়ে ডুবো তেলে ভাজুন। ভাজা হয়ে গেলে তাতে গুঁজে দিন টুথ পিক।তারপর মেয়োনিজের সঙ্গে কাসুন্দি মিশিয়ে ডিপ তৈরি করুন। পরিবেশন করুন চা-টা।

    মাশরুম পকোড়া

    অনেকেই বলবেন মাশরুম খাই না। কেউ বলবেন কী করে ঠিক রান্না করে জানি না। কিন্তু শুনে রাখুন প্রোটিনে ভরা মাশরুম খাওয়া শরীরের জন্য খুব ভাল।বানিয়ে ফেলুন মাশরুম পকোড়া। লাগবে- তাজা বাটন মাশরুম, পেঁয়াজ, লঙ্কা, ধনেপাতা কুঁচি, নুন, ব্রেড ক্রাম্ব, লঙ্কা গুঁড়ো, চিজ, সাদা তেল।

    কী করে করবেন-মাশরুম ভাল করে পরিষ্কার করে ধুয়ে জল ঝরিয়ে কুঁচিয়ে নিন। এবার একটি পাত্রে অনেকটা ব্রেড ক্রাম্ব, (শুকনো পাঁউরুটি গুঁড়ো)পেঁয়াজ, ধনেপাতা, লঙ্কা কুঁচি, মাশরুম কুঁচি দিয়ে দিন। তার মধ্যে স্বাদমতো নুন, লঙ্কা গুঁড়ো দিন, ওপর থেকে গ্রেট করে দিয়ে দিন চিজ। ভাল করে মাখিয়ে নিন। দরকার হলে সামান্য জল দিন। গোল শেপ করে ভেজে নিন।ভাজা মাশরুম বলে খাওয়ার সুবিধের জন্য গেঁথে দিতে পারেন টুথপিক। চা-কফির সঙ্গে দিব্য জমবে।

    এগ ফিঙ্গার- 

    ফিশ ফিঙ্গার তো অনেক খেয়েছেন। এবার না-হয় চেখে দেখুন এগ ফিঙ্গার। বাইরে থেকে দেখে কেউ বুঝবে না অবশ্য। যা তফাৎ স্বাদে।লাগবে ডিম, গোল মরিচ, লঙ্কা গুঁড়ো, চিলি ফ্লেক্স, কর্ন ফ্লাওয়ার, ময়দা, নুন, ইটালিয়ান সিজলিং, ব্রেড ক্রাম্ব।

    কী করে করবেন-চার পাঁচটা ডিম ভাল করে নুন, আদা বাটা ও গোলমরিচ গুঁড়ো দিয়ে ফেটিয়ে নিন। এবার একটি টিফিন বক্সে তেল মাখিয়ে নিয়ে ডিমের মিশ্রনটা ঢেলে নিন। কড়াইতে জল দিয়ে টিফিন বক্সটা ঢাকনা দিয়ে বসিয়ে কিছু একটা চাপা দিয়ে রাখুন। এভাবে মিনিট দশেকে ডিম ভাপিয়ে নিন।ঠাণ্ডা হলে বের করে লম্বা আঙুলের মতো পিস করে কাটুন। এবার একটি পাত্রে ময়দা, কর্নফ্লাওয়ার, চিলি ফ্লেক্স, ইটালিয়ান সিজলিং(অপশনাল) মিশিয়ে নিন। আর একটি পাত্রে দুটি ডিম নুন দিয়ে ফেটিয়ে রাখুন। আর একটি পাত্রে রাখুন ব্রেড ক্রাম্ব। এবার ডিমের লম্বা টুকরো গুলো কর্নফ্লাওয়ারের মিশ্রন মাখিয়ে ফেটিয়ে রাখা ডিমে চুবিয়ে নিন। তারপর ব্রেড ক্রাম্ব মাখান। আবার ডিমে চুবিয়ে ব্রেড ক্রাম্ব মাখান। দুবার করলে ব্রেড ক্রাম্ব ভালভাবে আটকে যাবে। তারপর ভেজে নিন।তুলে স্যালাড দিয়ে খান মুচমুচে ডিম ফিঙ্গার।সঙ্গে চুমুক দিন ধোঁওয়া ওঠা দার্জিলিং চায়ে।

    সুজির পকোড়া-


    সবচেয়ে কম সময়ে স্ন্যাক্স সুজি দিয়ে বানিয়ে ফেলুন।লাগবে সুজি, টক দই, পেঁয়াজ, ধনে পাতা, গাজর কুঁচি, লঙ্কা কুঁচি, আদা বাটা, খাবার সোডা, নুন।

    কী করে করবেন-সুজির সঙ্গে টক দই ভাল করে ফেটিয়ে নিন। তার মধ্যে একে একে পেঁয়াজ, কাঁচালঙ্কা, আদা-সহ সমস্ত উপকরণ দিয়ে মিশিয়ে নিন। স্বাদমতো নুন দিন।এক চিমটে খাবার সোডা মেশান। এরপর মিশ্রনটা অন্তত আধ ঘণ্টা ঢাকা দিয়ে রাখুন। কারণ, দইয়ের মধ্যে সুজি ভিজতে সময় লাগবে। যখন দেখবেন সুজি ভাল করে ভিজে ফুলে উঠেছে তখন পকোড়া বা বলের মতো আকার দিয়ে ভেজে ফেলুন। তারপর?  আর কী, চানাচুর, পেঁয়াজ দিয়ে মুড়ি মেখে চা আর সুজির পকোড়া নিয়ে সন্ধেয় টিভির সামনে বসে যান।

    ফিস পকোড়া- 

    বড্ড বেশি নিরামিষ হয়ে যাচ্ছে? চিন্তা নেই গেস্ট এলে বরং ফিশ পকোড়াটাই ভেজে খাওয়ান। লাগবে- ভেটকি, বা লটে মাছ। ভেটকি হলে ফিলে লাগবে। আর ডিম।

    কী করে করবেন- লটে মাছ ছোট ছোট টুকরো করে নিন। তারপর লেবুর রস, আদা, রসুন বাটা, নুন, সামান্য হলুদ, লঙ্কাগুঁড়ো, সরষের তেল দিয়ে অন্তত একঘণ্টা মাখিয়ে রাখুন।তারপর বেসন ও কর্নফ্লাওয়ার মিশিয়ে তাতে দিন লঙ্কা গুঁড়ো, অল্প গোলমরিচ ও স্বাদমতো নুন দিন।ভাল করে মেশান।ডিম সামান্য নুন দিয়ে ফেটিয়ে নিন। এবার ম্যারিনেট করা মাছের টুকরো বা ফিলে গুলো ডিমে  চুবিয়ে কর্নফ্লাওয়ার গুঁড়ো মাখিয়ে ডিপ ফ্রাই করুন।এটা আপনি কাসুন্দি আর স্যালাড দিয়ে পরিবেশন করুন। জমে যাবে।

    সোয়াচাঙ্ক পকোড়া-


    সোয়াবিন শুধু তরকারি নয়, পকোড়া করেও খাওয়া যায় চায়ে টা হিসেবে।

    লাগবে-সোয়াবিন,নুন, ধনেপাতা, লঙ্কাগুঁড়ো, নুন, ব্যাসন, চালের গুঁড়ো, লেবুর রস, জোয়ান।

    কী করে করবেন- নুন দিয়ে জল গরম করে নিন।তাতে ভিজিয়ে রাখুন সোয়াবিন। নরম হয়ে গেলে সোয়াবিন ছেঁকে নিন। চাপ দিয়ে জল বের করে নিন।এবার সোয়াবিনে লেবুর রস মাখিয়ে নিন। তারপর ব্যাসন, চালের গুঁড়ো, নুন, লঙ্কাগুঁড়ো, ধনেপাতা কুঁচো, স্বাদমতো নুন ভাল করে মাখিয়ে নিন। ছাঁকা তেলে ভেজে নিন। নামামোর পর ওপর থেকে ছড়িয়ে দিন চাট মশলা। সঙ্গে দিন ধনেপাতার চাটনি।আর সন্ধের চাতো আছেই।

    তাহলে চায়ে ব্রেকে কোনটা পছন্দ? সোয়াবিন, আলুর ললিপপ না কি ডিমফিঙ্গার? ঘুরিয়ে ফিরিয়ে ট্রাই করুন সমস্তটাই। মন্দ লাগবে না।