মঙ্গলবার, জানুয়ারী 26, 2021

ঘুম আসে না! তাহলে ট্রাই করুন এই আয়ুর্বেদিক পদ্ধতি
ঘুম আসে না! তাহলে ট্রাই করুন এই আয়ুর্বেদিক পদ্ধতি

ঘুম আসে না! তাহলে ট্রাই করুন এই আয়ুর্বেদিক পদ্ধতি

  • scoopypost.com - Dec 17, 2020
  • বহু সাধ্য-সাধনা করেও ঘুম আসে না। যদি বা আসে সামান্য শব্দে ভেঙে যায়। সেই ঘুম গভীর হয় না।কিন্তু গভীর পর্যাপ্ত ঘুম একজন মানুষকে শারীরিক ও মানসিকভাবে সুস্থ রাখতে খুব জরুরি। শুধু সুস্থতা নয়, শরীরে রোগ প্রতিরোধ ক্ষম

    তা গড়ে ওঠার সঙ্গে ঘুমেরও সম্পর্ক রয়েছে।

    নরম বালিশ, হাল্কা আলো, মিউজিক থেরাপি সবই যদি বিফলে গিয়ে থাকে তাহলে বরং চেষ্টা করুন পুরনো আয়ুর্বেদিক পদ্ধতি অনুসরণের।রেখা দিয়েকর জানাচ্ছেন প্রাচীন এই পদ্ধতির কথা।

    কী সেটা!

    শুতে যাওয়ার আগে পায়ের চেটোয় কাঁসা বা শংকর ধাতুর ছোট্ট বাটি নিয়ে, সেই বাটি দিয়ে গরুর দুধের ঘি না হলে কোকাম বাটার, নয়তো নারকেল তেল ম্যাসাজ করুন। ধীরে ধীরে ওই বাটি দিয়ে পায়ের নীচে ম্যাসাজ করলে নার্ভ শিথিল হবে। শরীরে আরামবোধ হবে। এতে শরীরের নিম্নাংশের স্নায়ু ও মাংসপেশি সতেজ হবে। কারণ, এতে রক্ত  সঞ্চালন ভালো হবে। আর এই ম্যাসাজ ক্লান্ত চোখকে আরাম দেবে। কারণ, পায়ের নীচে রয়েছে প্রচুর স্নায়ু। সে কারণে ফুট-স্পাএ শরীরে রিল্যাক্সড লাগে সবচেয়ে বেশি।

    এই পদ্ধতি নিয়মিত অনুসরণ করলে ঘুম ভালো হবে। দীর্ঘক্ষণ হবে।

    গভীর ঘুম শরীরে নতুন কোষ তৈরিতে সাহায্য করে। যা শরীরে রোগপ্রতিরোধ ক্ষমতার জন্য জরুরি।

    ম্যাসাজের ক্ষেত্রে প্রথম পছন্দ অবশ্যই দেশি ঘি। তা না পেলে কোকাম বাটার। আর সেটাও না থাকলে নারকেল তেল।

    তবে কেন কাঁসার বাটি!

    রেখা জানাচ্ছেন কাঁসার বাটি শরীর থেকে তাপ বের করে দিয়ে আরাম করতে সাহায্য করে। তাই কাঁসার বাটি ব্যবহার করতে বলা হয়।