বুধবার, নভেম্বর 25, 2020

যৌনজীবনে অনীহা! জানুন উত্তেজনা ফেরাবেন কী করে
যৌনজীবনে অনীহা! জানুন উত্তেজনা ফেরাবেন কী করে

যৌনজীবনে অনীহা! জানুন উত্তেজনা ফেরাবেন কী করে

  • scoopypost.com - Oct 16, 2020
  • রোজকার টানাপোড়নে বড্ড নিরস হয়ে গিয়েছে দাম্পত্য! ‘সেক্স’ নাম শুনলেই বিরক্তি তৈরি হচ্ছে! যৌনতা নিছক অভ্যেস হয়ে উঠেছে!

    তাহলে কিন্তু কিছু একটা করতেই হবে। কারণ, সুস্থ যৌন জীবন শরীর ও মন ভালো লাগার ওষুধ। আবার, শরীর-মন সায় না দিলে পানসে হয়ে যায় যৌন জীবনে। রোজকার জীবনে হারিয়ে যায় যৌন উত্তেজনা।এটা এই মুহূর্তে দাঁড়িয়ে অত্যন্ত সাধারণ সমস্যা হয়ে দাঁড়িয়েছে। কিন্তু জীবনে টুইস্ট না থাকলে কি হয়!

    তাই পানসে হয়ে যাওয়া ‘সেক্স’ –কে ইন্টারেস্টিং করে তুলুন। কীভাবে রইল তারই টিপস।

    অনিচ্ছা কেন?

    প্রথমেই জানতে হবে আগে যে যৌনতা তৃপ্তি দিত তাতে অনীহা কেন! একঘেয়ে জীবন, হাজারও সমস্যা, ক্লান্তি, অফিসের চাপ, সংসারের কাজেই কি যৌনতায় দাঁড়ি পড়ছে! দিনভর যদি শারীরিক-মানসিক ক্লান্তি থাকে তাহলে বিছানায় পারফরম্যান্সে তার ছাপ পড়বেই।

    আবার হরমোনাল তারতম্যে ইচ্ছে চলে যেতে পারে। ইচ্ছে চলে যাওয়ার একটা বড় কারণ হতে পারে কিন্তু পার্টনারের সঙ্গে মানসিক দূরত্ব। আবেগ যত ঘন, যৌনতায় তত গভীর হতে পারে। আবেগে ভাটা পড়লেও যৌনতা পানসে হয়ে যাবে। তাই যেটা করতে হবে...

    সঙ্গীর সঙ্গে কথা বলুন

    রোজকার কর্মব্যস্ততায় স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে ক’টা কথা হয় বলুনতো। হলেও সংসারে কী নেই, ছেলে-মেয়ের জন্য কী করতে হবে, বাবা-মা, শ্বশুর-শাশুড়ির শরীর খারাপ এই সব কথা।কিন্তু প্রেমের দিনগুলো বা বিয়ের পর প্রথম প্রথম কি এইসব ছিল! তাই সংসারের চিন্তা-ভাবনা সরিয়ে প্রাণ খুলে দু’জনে কথা বলুন। একসঙ্গে বসে ওয়েব সিরিজ, সিনেমা দেখুন। বাচ্চার বাইরেও স্বামী-স্ত্রীর একান্ত নিজস্ব জগত্ থাকে।ফিরিয়ে আনুন রোম্যান্টিক পরিবেশ। চাইলে ঘরে ফুল রাখুন, ক্যান্ডেল জ্বালান।একসঙ্গে বসে ইরোটি মুভি দেখুন।

    বেড়াতে বেরিয়ে পড়ুন

    বড় ট্রিপ সম্ভব না হলে উইকএন্ডে কোথাও ঘুরে আসুন। ক্যান্ডেল লাইট ডিনার বা  পছন্দের কোনও জায়গায় চলে যান। আসলে মন রিফ্রেশড হলে দেখবেন যৌন ইচ্ছায় ফিরছে। দু’দিনের জন্য সমুদ্র-পাহাড়-জঙ্গলে পাড়ি দিন। প্রকৃতির সঙ্গে মন মিশিয়ে যৌনতায় ডুব দিন।

    পোশাকে নেশা

    ভালো ভালো পোশাক পরুন। সাজুন-ফ্রি থাকুন। বেড়ানোর প্ল্যান করে  খোলামেলা পোশাক পরুন। অনেক সময় এই সামান্য বিষয়গুলোও যৌন ইচ্ছা জাগায়।

    ভার্চুয়াল সেক্স

    প্রেম করার সময় যে সমস্ত কথা বলতে ভালো লাগত, বিয়ে হয়ে গিয়েছে বলে তাতে ইতি পড়বে কেন। লকডাউনে অনেকেই বিভিন্ন জায়গায় আটকে রয়েছেন কাজের সূত্রে। ফোনে যৌনতায় কোনও আপত্তি নেই। শুধু সমস্যার কথা না-বলে যৌন উত্তেজক কথা বলতে পারেন। কিম্বা রোম্যান্টিক কথাও হতে পারে। যাতে পুরনো দিনগুলো ফিরবে।

    নিউ ট্রিক

    যৌনতা বিষয়টা যখন বিস্তারিত তখন জীবনেও উত্তেজনা আনুন। ইন্টারনেট থেকে বই, ভিডিও নিজেরাই নতুন নতুন পোজ, এক্সাইটমেন্ট-এর বিষয় বের করুন। রাতে শুয়ে গায়ে সুরসুরি থেকে পিঠে আঙুল দিয়ে লেখা... এই ধরনের খেলা খেলুন। আর যৌনতা মানে শুধু ইন্টারকোর্স নয়। ভালোবাস ছাড়া যৌন তৃপ্তি পাওয়া কঠিন। তাই মন-প্রাণ তাতে ঢেলে দিন।

    এড়িয়ে যাওয়ার চেষ্টা-

    হরমোনাল ভারসাম্য নষ্ট হলে, ক্লান্তি-অবসাদে যৌন ইচ্ছে চলে যায়। আবার মহিলাদের বয়স হলে ভ্যাজাইনাল ফ্লুইড কমতে থাকায়  ইন্টারকোর্স যন্ত্রণাদায়ক হয়। বয়স বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে অনেক পুরুষের লিঙ্গ দৃঢ় হওয়ার সমস্যা দেখা দেয়। সঙ্গীর কাছে নিজেদের খামতি ঢাকতে যৌনতা এড়িয়ে যাওয়ার চেষ্টা হয়। কিন্তু এক্ষেত্রে চিকিত্সকের পরামর্শ নেওয়া উচিত। কারণ, যৌন জীবনই দীর্ঘদিনের মানসিক ও শারীরকি সুস্থতা দিতে পারে।

    ডোপামিন

    ভালোবাসা, সেক্সুয়াল প্লেজার ‘ডোপামিন’ নামে হরমোনের বিশেষ ভূমিকা থাকে। উইকএন্ডে তাই জয় রাইড বা এক্সাইটিং কোনও প্ল্যান রাখতে পারেন। এতে ডোপামিন-এর ক্ষরণ বাড়বে। আবার এই ডোপামিন যৌনতার ইচ্ছেতেও ইন্ধন দেবে। অর্থাত্ মন খুশি থাকলে যৌন ইচ্ছেও হবে।

    খাওয়া, ঘুম, এক্সারসাইজ

    ফাস্ট ফুড নয়। খেতে হবে প্রোটিন সমৃদ্ধ খাবার। ভিটামিন, প্রোটিন যুক্ত খাবারও যৌনজীবনের জন্য দরকারি। দরকার ঘুম। তাতে বিশ্রাম হয়। আর যদি নিয়মিত যোগাভ্যাস করা যায় তাহলে যৌন জীবন আরও ভালো হতে পারে।