মঙ্গলবার, জানুয়ারী 26, 2021

ডিঙ্কার সঙ্গে পুটুপিসির রিয়েললাইফের প্রেম!
ডিঙ্কার সঙ্গে পুটুপিসির রিয়েললাইফের প্রেম!

ডিঙ্কার সঙ্গে পুটুপিসির রিয়েললাইফের প্রেম!

  • scoopypost.com - Nov 20, 2020
  • ‘শ্রীময়ী’ সিরিয়ালে শ্রীময়ীর মেজো ছেলে ডিঙ্কা। টেলিভিশন ও সিরিয়ালের দৌলতে শ্রীময়ীর পরিবারের সঙ্গে এখন একাত্ম হয়ে গিয়েছেন দর্শকরা। ডিঙ্কা আর তার নতুন স্ত্রী কিয়াকে নিয়ে সকলের মাথা ব্যাথা।কারণ, কিয়া বিয়ে করে শ্রীময়ীর বাড়িতে আসা ইস্তক শাশুড়ির সঙ্গে দুর্ব্যবহার করে চলেছে।

    ঘরের ছেলে হয়ে যাওয়া ডিঙ্কা, তাঁর আসল জীবনের স্ত্রী কে জানেন কি!না জানলে কিন্তু চমকাতে হবে।
    শ্রীময়ীর মেজো ছেলে ডিঙ্কার বাস্তবে জীবনসঙ্গী হল খড়কুটো সিরিয়ালের পুটুপিসি। ডিঙ্কা মানে সপ্তর্ষি মৌলিকের সঙ্গে পুটু অর্থাত্ সোহিনীর প্রেম থিয়েটারের মঞ্চে। বয়সের ব্যবধানের জন্য সমাজের কটাক্ষ ছিল। তবে সে সমস্ত থোরাই কেয়ার করে রিয়েল লাইফে জমিয়ে সংসারও করছেন তাঁরা।

    সপ্তর্ষি মৌলিক, সিরিয়ালে আসার আগে তাঁর অভিনয়ে হাতেখড়ি থিয়েটারে। অভিনয় করতে গিয়ে তাঁর আলাপ রুদ্রপ্রসাদ সেনগুপ্ত ও স্বাতীলেখা সেনগুপ্তর মেয়ে সোহিনী সেনগুপ্তর। সোহিনী সেলেব কন্যা। তবে সপ্তর্ষির কাছে তিনি ছিলেন শুধুই শিক্ষিকা। রুদ্রপ্রসাদ ও স্বাতীলেখা সেনগুপ্ত সম্পর্কে সেভাবে জানতেনই না তখন সৌরভ। ফলে সোহিনীকে সেলেব কন্যা হিসেবে দেখেননি তিনি। আর সৌরভের মানসিক দৃঢ়তা, সোহিনীকে সোহিনী হিসেবেই দেখাটা বড় ভালো লেগে যায় তাঁর।

    সৌরভের চেয়ে প্রায় ১৪ বছরের বড় সোহিনী।তার ওপর ডিভোর্সি। ফলে সমাজের ব্যাঙ্গ, কটাক্ষ ছিলই। তবে সে সবে কান দেননি থিয়টারের দুই জনপ্রিয় মুখ। সোহিনীও অত্যন্ত শিক্ষিতা, গুণী ও উদারমানসিকতার মানুষ। অদ্ভূতভাবে সপ্তর্ষি ও সোহিনীর কেমিস্ট্রি ক্লিক করে যায়।

    সপ্তর্ষি গিয়েছিলেন বিখ্যাত নাট্যকার, অধ্যাপক রুদ্রপ্রসাদ সেনগুপ্তর সংগঠন ‘নান্দিকার’ –এ ওয়ার্কশপ করতে। নান্দিকারের সঙ্গে ওতপ্রোতভাবে জড়িত অভিনেত্রী সোহনী। শুরুতে অবশ্য প্রেম ছিল না। সিনিয়র ও শিক্ষিকা সোহিনীর কাছে বকাঝকা খেতেন সৌরভ।
    একসঙ্গে কাজ করতে করতেই তাঁদের মন মিলে যায়। এক সাক্ষাত্কারে দম্পতি জানিয়েছেন, সোহিনী প্রোপোজ করেছিলেন সপ্তর্ষিকে। তাও সরাসরি বিয়ের প্রস্তাব। তাতেই রাজি হয়ে যান সপ্তর্ষি। সোহিনীর ভয় ছিল এবার বিষয়টা দুই পরিবারকে কী করে জানানো হবে। বিশেষত সৌরভের বাড়িতে কী প্রতিক্রিয়া হবে!

    তবে আশ্চর্যের ব্যাপার সমাজ এ নিয়ে নানা কথা বললেও, সপ্তর্ষির পরিবার সহজেই মেনে নিয়েছিল। আর সোহিনীর বাবা রুদ্রপ্রসাদকে সম্পর্কের কথা জানিয়েছিলেন সপ্তর্ষি। সোহিনী বলতেই পারেননি। তিনি খুশিমনে বিষয়টি গ্রহণ করেন। তারপর এক সময় তাঁরা বিয়েও করেন।আর এখন সুখে সংসার করছেন।

    সপ্তর্ষি এখন শ্রীময়ী সিরিয়ালের ডিঙ্কা। আর সোহিনী সেনগুপ্ত খড়কুটো সিরিয়ালের পুটুপিসি। দু’জনেই দর্শকদের কাছের।