মঙ্গলবার, জানুয়ারী 26, 2021

সৌমিত্রর সৃষ্টি অমর করতে আর্কাইভ চান মেয়ে
সৌমিত্রর সৃষ্টি অমর করতে আর্কাইভ চান মেয়ে

সৌমিত্রর সৃষ্টি অমর করতে আর্কাইভ চান মেয়ে

  • scoopypost.com - Nov 17, 2020
  • বাবা কম, কমরেড বেশি ছিলেন। সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায় ও মেয়ে পৌলমীর মধ্যে সম্পর্কটা ছিল অনেক বেশি বন্ধুত্বের। ছোট থেকে বড় হওয়ার সময় বাবার উন্মুক্ত চিন্তাধারা ছাপ ফেলেছিল মেয়ের মধ্যে। আর তাই মৃত্যুর পর পরজন্ম, পারলৌকিক আচার অনুষ্ঠানে বিশেষ বিশ্বাস নেই সৌমিত্র তনয়া পৌলমীর। আসলে এসব বিশ্বাস একসময় বাবাই তাঁর মধ্যে গেঁথে দিয়ে গিয়েছিলেন।

    আর তাই প্রয়াত বাবাকে যথাযথ শ্রদ্ধা জানাতে তাঁর জীবনের বহু দিক, সংগ্রহ, লেখা, কবিতা, ছবি নিয়ে আর্কাইভ বানাতে চান পৌলমী। চান ভবিষ্যতে যাঁরা এই কিংবদন্তী শিল্পীকে নিয়ে গবেষণা করবেন তাঁরা যেন সহজেই সে সব রসদ এক ছাতার তলায় পান। আর এটাই হবে পৌলমীর মতো করে পিতৃতর্পণ।

    টানা ৪০ দিন নার্সিংহোমে লড়াই শেষে চিরঘুমের দেশে পাড়ি দিয়েছেন বাঙালির ‘আইকনিক হিরো’। তাঁর শেষবেলায় আবেগরুদ্ধ বাঙালি হৃদয়ের শ্রদ্ধা জানিয়েছে। পৌলমী নিজে শ্রাদ্ধ-সহ পারলৌকিক কাজকর্মে বিশেষ বিশ্বাসী না হলেও মায়ের কথা ভেবে নিয়ম মেনে বাবার কাজ করেছেন, করছেন।

    তবে হাসপাতালে যখন মানুষটি মৃত্যুর সঙ্গে লড়ছিলেন তখনই পৌলমী ভেবেছিলেন বাবার সৃষ্টিকে বাঁচিয়ে রাখতে হবে। “জন্মিলে মরিতে হবে, অমর কে, কোথা কবে!” শরীর চলে যায়, কিন্তু তাঁর কাজ থেকে যায়। আর তাই ভক্তের হৃদয়ে উজ্জ্বল হয়ে থাকবেন ফেলুদা।

    ঠিক সে কারণেই বাচিকশিল্পী, আবৃত্তিকার, নাট্যকার, কবি, অভিনেতা, চিত্রশিল্পী সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায়কে বাঁচিয়ে রাখতে চান তাঁর মেয়ে। সৌমিত্রর বিভিন্ন আবৃত্তির সংকলন যা এলোমেলা হয়ে রয়েছে, কবিতা, নাটক সমস্ত কিছুই তিনি সংগ্রহ করতে চান। যাতে ভবিষ্যতে বাংলা চলচ্চিত্র, নাটক নিয়ে যাঁরা কাজ করতে চান তাঁদের সুবিধে হয়। সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায়ের মধ্যে শিক্ষিত, দার্শনিক মানুষের কাজ নতুন প্রজন্মের অনুপ্রেরণা হতে পারে। আর এটাই হবে বাবার জন্য সন্তানের উপযুক্ত শ্রদ্ধার্ঘ।

    সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায়ের শেষ বেলায় যেভাবে ডাক্তার, নার্সতো বটেই, রাজনৈতিক বিভেদ ভুলে সকলে এক হয়েছেন মেয়ে হিসেবে এটা তাঁর বাবার পরমপ্রাপ্তি বলেই মনে করেন পৌলমী।আর তাই চান বাবার সৃষ্টি আর্কাইভে অমর হোক।