বুধবার, এপ্রিল 14, 2021

জেইই-র ছাত্র সংখ্যা নিয়ে স্বামী-পোখরিওয়ালের টুইট যুদ্ধ
জেইই-র ছাত্র সংখ্যা নিয়ে স্বামী-পোখরিওয়ালের টুইট যুদ্ধ

জেইই-র ছাত্র সংখ্যা নিয়ে স্বামী-পোখরিওয়ালের টুইট যুদ্ধ

  • scoopypost.com - Sep 11, 2020
  • চারজনের একজনই পরীক্ষায় বসেননি। পরীক্ষায় না দেওয়া মোট ছাত্র-ছাত্রীর সংখ্য প্রায় আড়াই লাখ। ৬ তারিখ জেইই-র পরীক্ষা শেষ হওয়ার পর যে তথ্য সামনে এসেছে তাতে মোদি সরকারের অস্বস্তি বেড়েছে। সরকারের এই অস্বস্তি আরও বাড়িয়ে দিয়েছেন বিজেপি নেতা সুব্র্যম্যনিয়ান স্বামী। তিনিই বিজেপির একমাত্র নেতা  যে ই ইর পরীক্ষার বিরুদ্ধে প্রকাশ্যে কথা বলেছিলেন।

    ৬ তারিখ  জেইই পরীক্ষা শেষ হয়। তারপর কেন্দ্রীয় শিক্ষা মন্ত্রী রমেশ পোখরিওয়াল কতজন ছাত্র পরীক্ষা দিল তা নিয়ে একটা কথাও বলেন নি। অথচ দেশজুড়ে যখন এই পরীক্ষা হওয়া নিয়ে বিতর্ক চলছিল তখন প্রায় নিয়মিত তিনি এই পরীক্ষার পক্ষে সওয়াল করেছেন।  একাধিক তথ্য-পরিসংখ্যান দিয়ে তিনি দাবি করেছিলেন দেশের ছাত্র সমাজ চাইছে এই পরীক্ষা হোক।আইন –আদালত সব জায়গায় এই পরীক্ষা নিয়ে বাদ-বিবাদ হয়েছে। সুপ্রিম কোর্টও এই পরীক্ষার পক্ষেই রায় দেয়। বিরোধীরাতো বটেই খোদ বিজেপির বিশিষ্ট নেতা সুব্র্যম্যানিয়ান স্বামীও এই পরীক্ষার বিরোধিতা করেছিলেন।

    জেইই শেষ হওয়ার পর সেই স্বামীর কাছ থেকেই প্রথম ধাক্কাটা এল। তিনি বুধবার প্রথম টুইট করে জানিয়ে দিলেন,  জেইই পরীক্ষায় এইবারই সবচেয়ে বেশি সংখ্যায় ছাত্র-ছাত্রী পরীক্ষা দেয়নি। স্বামী বলেন ১৮ লাখ ছাত্র পরীক্ষার পাস ডাউনলোড করেছিল। কিন্তু পরীক্ষার হলে এসেছে মাত্র আট লাখ। স্বামীর এই টুইট সামনে আসতেই নড়চড়ে বসেন কেন্দ্রীয় শিক্ষা মন্ত্রী রমেশ পোখরিওয়াল। তিনি সঙ্গে সঙ্গে পালটা টুইট করে দাবি করেন, 8.58 লাখ ছাত্র-ছাত্রীর নাম নথিভুক্ত হয়েছিল।শেষ পর্যন্ত পরীক্ষা দিয়ে ছে  ৬.২৩ লাখ ছাত্র। পোখরিওয়ালের এই পরিসংখ্যানকেও চ্যালাঞ্জ করেন সুব্র্যমানিয়ান স্বামী।বৃহস্পতিবার  তিনি ফের টুইট করে দাবি করেন, সরকার সুপ্রিম কোর্টে যে তথ্য দিয়েছে তাতে বলা হয়েছে মোট ৯.৫৩ লাখ ছাত্র পরীক্ষার জন্য নাম নথিভুক্ত করেছিল। স্বামীর এই তথ্যও খন্ডন করার চেষ্টা করেন রমেশ পোখরিওয়াল।  

    এদিকে বিরোধীরা বলছে বিজেপির অন্দরের দুই নেতার টুইট যুদ্ধ প্রমাণ করছে যে নিট এবং জেইই পরীক্ষা বাতিলের যে দাবি তাঁরা তুলেছিলেন তা কতটা যুক্তিযুক্ত ছিল। বিরোধীদের অভিযোগ,  বলছে বিজেপি দেশে স্বেচ্ছাচারিতা চালাচ্ছে। যুক্তরাষ্ট্রীয় কাঠামোয় যা মেনে নেওয়া যায় না।