বুধবার, নভেম্বর 25, 2020

বাংলার ঐতিহ্য মিলেমিশে গেছে যে মণ্ডপে
বাংলার ঐতিহ্য মিলেমিশে গেছে যে মণ্ডপে

বাংলার ঐতিহ্য মিলেমিশে গেছে যে মণ্ডপে

  • scoopypost.com - Oct 05, 2019
  • বাংলার মুখ। নগরায়ন ও উন্নয়নের ভিড়ে যারা ভুলে যাচ্ছে বাংলার ঐতিহ্য, নতুন প্রজন্ম যাদের কাছে অদেখা অনেক কিছুই তাঁদের কথা ভেবেই এবার অরবিন্দ সেতু সর্বজনীন দুর্গোৎসবের থিম বাংলার মুখ।

    কেমন সে মুখ?

    ফ্ল্যাট-সংস্কৃতিতে আলোটা জ্বালিয়ে দিলেই হল। ভুলে গেলে? পকেটের জোর থাকলে বাইরে থেকে রিমোট কন্ট্রোলেই জ্বেলে ফেলা চলে। তাই তুলসিতলায় পিদিম মানে কী, সেটা জানতে হয়তো গুগল সার্চ করতে হবে পরের প্রজন্মকে। এই মণ্ডপে রয়েছে মাটির প্রদীপ। যেন বাংলার মজ্জার সঙ্গে জড়িয়ে রয়েছে মাটির প্রদীপ। মাটির পুতুলও রয়েছে।

    তালপাতার হাতপাখা কত রকম হয়। কোনওটা নেড়া, কোনওটার ধার পাড় দিয়ে মুড়ে নিয়েছেন মা-ঠাকুমা। কতকাতার প্রথম বড় হোটেল গ্রেট ইস্টার্নেও তো এক সময় বাতাস করা হত বিশাল হাতপাখা দিয়েই, তা টাঙানো থাকত সিলিং থেকে। পুজোর সন্ধ্যারতিতেও থাকে সেই তালের পাখা, বিশাল মাপের। এই মণ্ডপে রয়েছে সেই পাখাও।

    কাহানি ছবিটা নিশ্চয়ই দেখেছেন, বিজয়ার দৃশ্যে লালপেড়ে শাদা শাড়ি পড়ে বিদ্যা বালান – না বিদ্যা একা নন, সেই পোশাকে শতশত বাঙালি। এই শাড়ি মানেই বাঙালিআনা। এটাও রয়েছে মণ্ডপে।

    আর রয়েছে খড়।

    ঘর ছাওয়া থেকে প্রতিমার কাঠামো তৈরি, গ্রামে গরুর জাবনা তৈরি... ও হ্যাঁ, শ্রীকৃষ্ণকীর্তনও পাওয়া গিয়েছিল এই খড়ের চালের মধ্যেই। ঠিকই ধরেছেন, তেতাল্লিশ বছরের পুরনো এই পুজোয় রয়েছে খড়ের ছোঁয়াও।

    প্রতিমার সাজ পাটের। জানেন তো, স্বাধীনতার আগে বাংলার পাটের জিনিসের কদর ছিল বিশ্বজোড়া!