বুধবার, এপ্রিল 14, 2021

ফের রেল-রাজ্য বিরোধ, এবার টালা ব্রিজ নিয়ে
ফের রেল-রাজ্য বিরোধ, এবার টালা ব্রিজ নিয়ে

ফের রেল-রাজ্য বিরোধ, এবার টালা ব্রিজ নিয়ে

  • scoopypost.com - Dec 06, 2020
  • দিন কয়েক আগেই উদ্বো্ধন হয়েছে মাঝেরহাট ব্রিজ। যে ব্রিজের নতুন নাম  ‘জয় হিন্দ’ ব্রিজ। ব্রিজ উদ্বোধন করতে গিয়ে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় রেলের তীব্র সমালোচনা করেন। তিনি বলেন, রেলের গড়মসির কারণেই মাঝেরহাট ব্রিজ উদ্বোধন করতে ৯ মাস দেরি হয়েছে। রেলের কাছ থেকে প্রয়োজনীয় অনুমতি পেতে এই বিলম্ব হওয়ার কারণেই মাঝেরহাট ব্রিজ শেষ করতে এত সময় লাগল। যার ফলে সাধারণ মানুষের হয়রানি বেড়েছে।

    এবার সেই একই বিতর্ক দেখা দিয়েছে টালা ব্রিজ নিয়ে। রাজ্য সরকারের অভিযোগ টালা ব্রিজ নির্মাণে রেল অহেতক দেরি করছে। এই ব্রিজ নির্মাণে কিছু ক্ষেত্রে রেলের অনুমতি দরকার। রেল লাইনের ওপর দিয়ে হওয়ার কারণেই এই অনুমতির দরকার হয়। রাজ্য সরকারের অভিযোগ যে যে ক্ষেত্রে রেলের অনুমতি দরকার সেই সেই ক্ষেত্রে তাদের সাহযোগিতা পেতে দেরি হচ্ছে। তিন মাস আগে সমস্ত কাগজ পাঠয়ে দেওয়া সত্ত্বেও রেল এখনও তাদের অনুমতি দেয় নি।

    টালা ব্রিজের স্বাস্থ্য পরীক্ষা করে বিশেষজ্ঞরা জানিয়েছিলেন এই ব্রিজ এখন ব্যবহার করা ঝুঁকির বিষয়। সেই মতো রাজ্য সরকার টালা ব্রিজ ভেঙ্গে নতুন ব্রিজ করার সিদ্ধান্ত নেয়। এই নির্মাণ প্রক্রিয়ায় সামিল রেলও। কারণ এই ব্রিজ রেল ট্র্যাকের ওপর দিয়ে গেছে। অর্থাৎ রেলের জমির ওপর ব্রিজের একাধিক পিলার তৈরি করতে হবে। সেই জন্যই রেলের অনুমতি দরকার। রাজ্য সরকারের অভিযোগ রেলকে সমস্ত কাগজ পত্র পাঠিয়ে দেওয়া হয় গত সেপ্টেম্বরে। রাজ্যের অভিযোগ তিনমাস পেরিয়ে গেলেও রেলের অনুমতি এখনও পাওয়া যায় নি। অথচ রেলের সঙ্গে যৌথ পরিদর্শনও হয়েছে। এতকিছুর পরেও রেল তাদের অনুমতি দিচ্ছে না। এর ফলে প্রকল্প নির্দিষ্ট সময় রূপায়ন করতে দেরি হ্যে যাবে। শুধু তাই নয় যত দেরি হবে তত প্রকল্পের খরচও বেড়ে যাবে।

    এদিকে রেলের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, সমস্ত খুঁটিনাঁটি বিষয় দেখার পরেই অনুমতি দেওয়া হয়। সেই জন্যই সময় একটু বেশি লাগছে। যদিও রেলের এই যুক্তি মানতে নারাজ রাজ্য। তাঁদের অভিযোগ আসলে এর পিছনে রাজনীতি আছে। রাজ্য সরকার যাতে নির্দিষ্ট সময়ে প্রকল্প শেষ করতে না পারে তার জন্যই রেল তাদের দেয় অনুমতি দিতে এত গড়িমসি করছে।

    টালা ব্রিজ অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ সেতু। উত্তরের সঙ্গে দক্ষিণের যোগাযোগের একমাত্র সেতু এই টালা ব্রিজ। সেই ব্রিজ বন্ধ হয়ে যাওয়ায় একদিকে যান চলাচলে যেমন গতি কমেছে তেমনই সাধারণ মানুষের হয়রানি বেড়েছে। ব্রিজের নির্মাতা এল অ্যান্ট টি, নতুন করে সেতু গড়ে তুলতে ১৮ মাস সময় নিয়েছে। এখন প্রশ্ন রেলের অনুমতি পেতেই যদি এত সময় লেগে যায় তাহলে নির্দিষ্ট সময়ে প্রকল্প শেষ হবে কী করে?