মঙ্গলবার, অক্টোবর 20, 2020

বিনা ঝঞ্ঝাটে কয়েক ঘণ্টায় গঙ্গাসাগর!
বিনা ঝঞ্ঝাটে কয়েক ঘণ্টায় গঙ্গাসাগর!

বিনা ঝঞ্ঝাটে কয়েক ঘণ্টায় গঙ্গাসাগর!

  • scoopypost.com - Jan 13, 2020
  • বাঙালির হাতে ধরে সহজ হল গঙ্গাসাগর যাত্রা।

    ট্রেন, নৌকো, ভ্যান। লম্বা লাইন কোনও ঝঞ্ঝাটই আর থাকবে না। কলকাতা থেকে সাড়ে তিন ঘণ্টায় চলে যাওয়া যাবে সাগরে। উলটে পাওয়া যাবে সমস্ত রকম আরাম। এসি, টিভি, খাবার। মাত্র সাড়ে তিন ঘণ্টায় বিলাসবহুল জাহাজে পর্যটকরা পৌঁছে যাবেন গঙ্গাসাগরে। বাঙালি ক্যাপ্টেনের হাত ধরে এটাই এখন বাস্তব। ভাড়াও সাধ্যের মধ্যেই।

    এক সময় গঙ্গা সাগরে যেতে গেলে অনেক কাঠখড় পোড়াতে হত পুণ্যার্থীদের। এখন সুুযোগ-সুবিধে বাড়লেও, ব্রেক জার্নি করতেই হয়। গঙ্গা সাগর যেতে হলে শিয়ালদহ থেকে ট্রেনে বা সড়কপথে পৌঁছাতে হয় কাকদ্বীপের লট এইটের ঘাটে। সেখান থেকে ভেসেলে অথবা লঞ্চে মুড়িগঙ্গা পেরিয়ে সাগরের কচুবেড়িয়া হয়ে গঙ্গাসাগর কপিল মুনির আশ্রম। সময় লাগে প্রায় ৪-৫ ঘণ্টা। আবার ভাটা থাকলে সেটা হয়ে যায় ৮-৯ ঘণ্টা। পরিশ্রমও কম হয় না। সেই হয়রানি কমাতে বাঙালি মেরিন ক্যাপ্টেন, মুম্বইয়ের একটি সংস্থার সঙ্গে গাঁটছড়া বেঁধে চালু করছেন এই ফেরি সার্ভিস।

    ১৫৬ আসন বিশিষ্ট জলযান পুরোটাই শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত। জাহাজে যাত্রীদের মনোরঞ্জনের জন্য টিভি ছাড়াও থাকছে দুটো বড় স্ক্রিন। তাতে সিনেমা দেখানো হবে। মালয়েশিয়া থেকে আনা হয়েছে এই বিলাসবহুল জলযান। সকাল ৭টায় বাবুঘাট থেকে ছাড়বে এই জলযান যা সাড়ে ১০টার মধ্যে পৌঁছে যাবে সাগরের কচুবেড়িয়া ঘাটে। এতে যেতে পারে সুন্দরবনগামী পর্যটকরাও। তাঁদেরকেও নামখানা পর্যন্ত পৌঁছে দেবে জলযান। ফিরতি পথে কচুবেড়িয়া থেকে জলযানটি ছাড়বে বিকেল তিনটে থেকে চারটের মধ্যে যা সন্ধে ৭টায় পৌঁছবে কলকাতায়। মাথা পিছু খরচ মাত্র ১০০০ টাকা। ইতিমধ্যেই এই জলযানকে সবুজ সঙ্কেত দিয়েছে রাজ্যের পরিবহণ দফতর।