বুধবার, এপ্রিল 14, 2021

আকাশেও নারীর বিজয়কেতন, এটিসি জিএম পদে মহিলা
আকাশেও নারীর বিজয়কেতন, এটিসি জিএম পদে মহিলা

আকাশেও নারীর বিজয়কেতন, এটিসি জিএম পদে মহিলা

  • scoopypost.com - Dec 03, 2020
  • আকাশেও এবার দাপট মেয়েদের। প্রথমবার দেশে এয়ার ট্রাফিক কন্ট্রোলের জেনারেল ম্যানেজার পদে বসলেন কোনও মহিলা। জটিল ও ঝুঁকিপূর্ণ কাজের দায়িত্ব পেলেন বঙ্গ তনয়া শ্যামলী হালদার। পুরুষদের একাধিপত্য ভেঙে সদর্পে সেখানে জায়গা করে নিয়েছেন বাঙালি কন্যে।

    মহারাষ্ট্রের নাগপুরে জন্ম শ্যামলীর। সেখানেই পড়াশোনা।

    ১৯৮৯-এ চাকরিতে যোগ। এয়ার ট্রাফিক ম্যানেজমেন্ট-এর দায়িত্ব ৩০ বছর ধরে দক্ষতার সঙ্গে সামলে এসেছেন শ্যামলী। যোগ্যতা নিরিখেই মঙ্গলবার তাঁকে কলকাতা এয়ার ট্রাফিক কন্ট্রোলের জেনারেল ম্যানেজার পদে বসানো হয়।

    তিনি যে সময় কাজ শুরু করেন তখন এয়ার ট্রাফিক কন্ট্রোলার হওয়ার ইচ্ছে নিয়ে এগিয়ে আসা মহিলার সংখ্যা ছিল হাতে গোনা।১৯৮৯ সালে প্রার্থী ন’জন মহিলার মধ্যে তাঁকে বেছে নেওয়া হয়।

    অসংখ্য পুরুষের ভিড়ে এত গুরুত্বপূর্ণ পদে মহিলা হিসেবে তিনি একাই লড়াই চালিয়েছেন।শ্যামলীর যোগ দেওয়ার আগে ১৯৭৩ সালে এয়ার ট্রাফিক কন্ট্রোলার হিসেবে এক মহিলা যোগ দিয়েছিলেন। তবে বছর তিনেকের মধ্যে তিনি সেই পদ ছেড়ে দেন। ১৯৮৫ সালেও এক মহিলা এয়ার ট্রাফিক কন্ট্রোলার হিসেবে যোগ দিয়েছিলেন। পরে তিনি সিভিল অ্যাভিয়েশনের ডিরেক্টর জেনারেল হয়ে যান। ফলে দীর্ঘদিন ধরে এয়ার ট্রাফিক কন্ট্রোলার-এর পদ সঙ্গে সামলানোর অভিজ্ঞতা রয়েছে শ্যামলী হালদারের। যোগ্যতার নিরিখে তিনিই ছিলেন উপযুক্ত প্রার্থী। শেষপর্যন্ত তাঁকে গুরুদায়িত্বের পদ দেওয়া হল। বলা চলে, এই পদ মহিলা নিজের কৃতিত্বে অর্জন করে নিলেন। দেখিয়ে দিলেন দেশের যে কোনও গুরুত্বপূর্ণ পদে বসার ও তা দক্ষতার সঙ্গে সামলানোর ক্ষমতা রাখেন মহিলারাও।

    ১৯৯০ সালে শ্যামলী এরোড্রাম অফিসার হিসেবে তিনি কাজ শুরু করেন। ১৯৯১ সালে তিনি পোস্টিং হয় কলকাতায় চলে আসেন। গত ৩০ বছর আকাশের ট্রাফিক সামলানোর পাশাপাশি বিয়ে করে সংসারও করেছেন তিনি। অফিসের গুরুদায়িত্ব সামলে বড় করেছেন মেয়েকেও।প্রফেশনাল ও সাংসারিক জীবনে ব্যালান্স করে দেখিয়েছেন, ইচ্ছে থাকলে উপায় হয়।

    আর আজ, শ্যামলীর এই পদ নিয়ে কলকাতা এটিসির জয়েন্ট জিএম অসিত সিনহা বলছেন, এই কাজ তিনি সঠিক ভাবেই পালন করতে পারবেন বলে তাঁর আশা। এয়ার ট্রাফিক কন্ট্রোলারের কাজ অত্যন্ত দায়িত্বের। যথেষ্ট মানসিক চাপ নিয়ে কাজ করতে হয়। সামান্য ভুল ত্রুটি বড় বিপদ ডেকে আনতে পারে। শ্যামলী সেই কাজ অত্যন্ত দায়িত্বের সঙ্গে এতদিন সামলেছেন। এখন বড় পদে এসেও, নিজের নাম রাখতে পারবেন।