বুধবার, এপ্রিল 14, 2021

দল বদলের মূল্যায়ণ
দল বদলের মূল্যায়ণ

দল বদলের মূল্যায়ণ

  • scoopypost.com - Dec 22, 2020
  • শুভেন্দু অধিকারী সহ একাধিক বিধায়ক, সাংসদ, প্রাক্তন সাংসদ, প্রাক্তন মন্ত্রী তৃণমূল ছেড়েছেন। আগামি দিনে আরও অনেকে দল ছাড়তে পারেন বলে মনে করা হচ্ছে। এতজন দল ছাড়ার কারণ কী? দলে এত অসন্তোষ কীভাবে তৈরি হল এবং এতজনের দল বদলে তৃণমূলে প্রভাব কী হল? এই নিয়েই এখন রাজ্য রাজনীতিতে কাটাছেঁড়া চলছে।

    তৃণমূল ছেড়ে যাওয়া অধিকাংশ নেতার নিশানায় একজনই। অমিত শাহের মঞ্চ থেকে নাম না করেও তাঁর বিরুদ্ধেই তোপ দেগেছেন শুভেন্দু অধিকারী। তীব্রস্বরে বলেছেন, তোলাবাজ ভাইপো হঠাও। এই ভাইপো কে তা বলার অপেক্ষা রাখে না। রাজনৈতিক মহলের মতে এখনও যাঁরা তৃণমূলে রয়েছেন তাঁদের মধ্যে অনেকেরই সেই ভাইপোর বিরুদ্ধে যথেষ্ঠ ক্ষোভ রয়েছে।শুধু মাত্র শুভেন্দুর মতো জনসমর্থন না থাকায় তাঁরা মুখ খুলছেন না। আগামি দিনে যে তাঁরা মুখ খুলবেন না সে নিশ্চয়তা নেই। দলের প্রবীণ এক নেতা এবং মন্ত্রী ইতিমধ্যেই বিজেপির দিকে পা বাড়িয়ে রয়েছেন বলে সূত্রের খবর। ফলে দলে যে ক্ষোভ, অসন্তোষ রয়েছে তা বলার অপেক্ষা রাখে না।

    এখন প্রশ্ন হল, এই এক ভাইপোর কারণে দলের এতজন নেতা, কর্মী দল ছেড়ে গেলেন। তাহলে দলের তো ভাবা দরকার, পাল্লা কোন দিকে ভারী হল? শুধু তাই নয়, দলে অবদান কাদের বেশি।  যে সব নেতা এতদিন ধরে দলের বিভিন্ন আন্দোলনে সক্রিয় ভাবে অংশ নিলেন, লড়াই করলেন দলে তাঁদের বেশি দরকার নাকি, কোনও ভাইপোকে দরকার। দলের নেতারা প্রশ্ন তুলতেই পারেন, দল ক্ষমতায় আসার আগে বা তারপরে কোন আন্দোলনে ভাইপো ছিলেন? দলের কোন কর্মসূচিতে তঁকে দেখা গেছে? দলের কোন দায়িত্ব তিনি সাফল্যের সংগে পালন করতে পেরেছেন?

    এ রাজ্যে ক্ষমতায় আসার পর, গত পঞ্চায়েত নির্বাচনেই তৃণমূল কংগ্রেসের ভূমিকা নিয়ে সবচেয়ে বেশি সমালোচনা হয়। রাজনৈতিক মহলের মতে সেই নির্বাচনে সবচেয়ে বেশি ্গোলমাল হয় দক্ষিণ চব্বিশ পরগনায়। পঞ্চায়েত নির্বাচনের আগে ভাইপোর মস্তিস্ক  প্রসূত বিরোধী শূন্য করার শ্লোগান তৃণমূলের বিরুদ্ধে গিয়েছে। ফলে দেখা যাচ্ছে ভাইপো দলের সম্পদ হয়ে ওঠার বদলে বোঝা বলেই প্রাণিত হয়েছেন। এছাড়াও তাঁর বিরুদ্ধে একাধিকবার দুর্নীতির অভিযোগও দলকে অস্বস্তিতে ফেলেছে। রাজনৈতিক মহলের প্রশ্ন এমন একজন নেতার জন্য দলের বহু পরীক্ষিত নেতাদের চলে যাওয়ার ক্ষতি পূরণ করা সম্ভব হবে তো?