শুক্রবার, মার্চ 05, 2021

বাংলায় অমিত শাহ
বাংলায় অমিত শাহ

বাংলায় অমিত শাহ

  • scoopypost.com - Dec 19, 2020
  • বিধানসভা ভোটের মাত্র পাঁচ মাস আগে রাজ্যে রাষ্ট্রপতি শাসন জারির সম্ভাবনা খারিজ করে দিলেন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী অমিত শাহ। তিনিসংবাদ মাধ্যমকে দেওয়া সাক্ষাতকারে রাজ্যে ৩৫৬ ধারা বা রাষ্ট্রপতি শাসন জারির সম্ভাবনা খারিজ করে দেন। তৃণমূল তাদের বিরুদ্ধে যে বহিরাগতের অভিযোগ তুলেছে তারও জবাব দেন তিনি। অমিত শাহ বলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে বঙ্গ বিজেপি টিমই হারাবে। এদিন তিনি ঘোষণা করেন বিজেপি ক্ষমতায় এলে এই রাজ্যেরই কেউ মুখ্যমন্ত্রী হবে। তিনি বলেন আগামি বিধানসভার নির্বাচনের ফল ঘোষণা হলে দেখা যাবে বিজেপি ২০০র বেশি আসন নিয়ে ক্ষমতায় এসেছে।

    শনিবার বাংলা সফরে এসে তৃণমূলের ভিত নাড়িয়ে দিয়ে গেলেন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী অমিত শাহ।  এদিন তাঁর সফরের অন্যান্য কর্মসূচি ছাপিয়ে গেল দলবদলের উচ্ছ্বাসে।মেদিনীপুরের কলেজ মাঠে ভীড়ে ঠাসা জনসমাবেশে অমিত শাহ রাজ্যে তৃণমূল সরকারকে ক্ষমতাচ্যূত করার আহ্বান জানান। তিনি বলেন পাঁচ বছরের জন্যে রাজ্যে বিজেপি সরকার প্রতিষ্ঠা করুন, এটা আবার সোনার বাংলা হয়ে উঠবে।

    শনিবার তিনি শহিদ ক্ষুদিরামের বাড়িও ঘুরে আসেন। ক্ষুদিরামের মূর্তিতে তিনি মালা দেন।  এরপর তিনি ক্ষুদিরামের নিকট আত্মীয়দের বাড়ি যান, তাঁদের উত্তরীয় পরান। পরে এই এলাকায় উন্নয়ন না হওয়ায় ক্ষোভ প্রকাশ করেন। যদিও এলাকায় উন্নয়ন না হওয়ার অভিযোগ মানতে চান নি জেলে পরিষদের সভাধিপতি উত্তরা সিংহরায়।  তিনি বলেন মোহবনি গ্রামে মডেল ভিলেজ গড়ে তোলার কাজ শুরু হয়েছে।

    এদিন তিনি মেদিনীপুরের দুই মন্দিরে পুজো দিয়ে বালিজুড়িতে কৃষক সনাতান সরকারের বাড়িতে মধ্যাহ্ন ভোজ সারেন। তাঁর সঙ্গে ছিলেন দিলীপ ঘোষ , কৈলাস বিজয়বর্গীয় সহ অন্যান্য নেতা। এদিনের মেনুতে ছিল--ভাত, রুটি, স্যালাড, শুক্তো, পটল ভাজা, ঢ্যাঁড়স ভাজা, লাউ দিয়ে মুগের ডাল, পোস্ত দিয়ে শাক ভাজা, ফুলকপির রসা, টক দই, চাটনি, পাঁপড়, মিষ্টি।

    মধ্যাহ্ন ভোজ সেরেই তিনি কলেজ মাঠে উপস্থিত হন। সেখানে শুভেন্দু সহ একাধিক নেতাকে বিজেপিতে স্বাগত জানান। তিনি বলেন, এ রাজ্যে বিজেপি ক্ষমতায় এলে সোনার বাংলা গড়ে উঠবে। তিনি প্রশ্ন করেন মোদি সরকার সাধারণ মানুষের জন্য একাধিক প্রকল্প নিয়ে এলেও তার সুবিধে সাধারণ মানুষ পাচ্ছেন না। এই প্রসঙ্গেই তিনি কৃষক সম্মান এবং আয়ুষ্মান ভারত প্রকল্পের  কথা উল্লেখ করেন।অমিত শাহ ছাড়াও এদিন শমীক ভট্টাচার্য, ভারতী ঘোষ, মুকুল রায় , রাহুল সিনহা এবং দিলীপ ঘোষ সভায় বক্তব্য রাখেন। আর বিজেপিতে যোগ দিয়েই প্রথম ভাষণে শুভেন্দু অধিকারী এদিন শ্লোগান তোলেন তোলাবাজ ভাইপো হঠাও। একই সঙ্গে বিজেপি নেতা কর্মীদের আশ্বস্ত করেন তিনি দলের একজন কর্মী হয়েই কাজ করবেন।

    শনিবার শুধু বিধায়ক, সাংসদরাই নন তৃণমূল ছেড়ে বিজেপিতে যোগ দেন একাধিক কাউন্সিলর, পঞ্চায়েত সদস্য। ভোটের আগে তৃণমূলের আরও ভাঙন হবে বলেও এদিনি বিজেপির সভা থেকে দাবি করা হয়। শনিবারের দল ব্দলের ধাক্কা তৃণমূল কীভাবে সামলায় তা আগামি দিনেই জানা যাবে।