মঙ্গলবার, নভেম্বর 24, 2020

মশা মারতে ফাঁদ নিউটাউনে !
মশা মারতে ফাঁদ  নিউটাউনে !

মশা মারতে ফাঁদ নিউটাউনে !

  • scoopypost.com - Sep 07, 2020
  • মশা মারতে কামান দাগার কথা শুনেছেন অনেকেই। তাই বলে ফাঁদ পাতা? উপায় কি? এডিস ইজিপ্টাই এর বিরুদ্ধে লড়াই করতে শেষ পর্যন্ত ফাঁদ পাতার সিদ্ধান্ত নিয়েছে নিউটাউন কলকাতা ডেভেলপমেন্ট অথরিটি বা এনকেডিএ। তারা ঠিক করেছে নিউটাউন এলাকার কিছু  খোলা জায়গায় এই মশা মারার ফাঁদ পাতা হবে। ডেঙ্গির মোকাবিলায় এই প্রকল্প হাতে নেওয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন এনকেডিএ-র এক আধিকারিক। 

    এনকেডিএ-র আধিকারিক জানাচ্ছেন, এই যন্ত্র থেকে কার্বনডাইঅক্সাইড নির্গত হয়। যা স্ত্রী মশাকে আকৃষ্ট করে। সেই গন্ধে তারা যন্ত্রের কাছে আসতেই মারা পড়ে। এই যন্ত্র বসানোর আগে এন কে ডি এ একটি পাইলট প্রজেক্ট হাতে নিয়েছিল। শহরের একটি পার্কে বসানো হয়েছিল একটি যন্ত্র। ভেক্টর কন্ট্রোলের অফিসার এবং পতঙ্গবিদেরা নিয়মিত সেই যন্ত্রের কার্যকারিতার ওপর নজর রাখতেন। কয়েকদিন নজরদারির পর দেখা যায় এই যন্ত্রের সাহায্যে মশার বংশবৃদ্ধি বেশ ভালভাবেই নিয়ন্ত্রণ করা যাচ্ছে। এরপরেই এই যন্ত্র আরও বেশি করে শহরের কয়েকটি জায়গায় বসানোর সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। আপাতত চারটি এই ধরণের যন্ত্র বসানোর কথা স্থির হয়েছে।

    এই চারটি যন্ত্রের একটি ইকো পার্কে, অন্যগুলি  নজরুলতীর্থ, রবীন্দ্রতীর্থ এবং ইকো আর্বান ভিলেজে বসান হচ্ছে। এই সবগুলিই রাখা হবে খোলা জায়গায়। এনকেডিএ আধিকারিকরা জানাচ্ছেন , তাঁরা চান না যাঁরা এই জায়গায় বেড়াতে বা ঘুরতে আসবেন তাঁরা মশার জ্বালায় বিরক্ত হন। তাছাড়া ডেঙ্গি নিয়ন্ত্রণের মতো গুরুত্বপূর্ণ বিষয় তো আছেই।

    এনকেডিএ-র চেয়ারম্যান দেবাশিস সেন জানিয়েছেন,এই প্রকল্প রূপায়ণের পিছনে মশার বংশ ধ্বংস করাই একমাত্র লক্ষ্য। তাই নতুন প্রযুক্তির সাহায্য নেওয়া। এডিস ইজিপ্টাই মশা নিয়ন্ত্রণ করা বেশ কঠিন।এরা খুব অল্প জলেই বংশবৃদ্ধি করতে পারে। ফলে তদের বিরুদ্ধে লড়াই করতে গেলে সবরকম উপায় ব্যবহার করতে হবে। এই যন্ত্র মশা নিয়ন্ত্রণে বেশ কার্যকর ভূমিকা নেবে বলেই মত দেবাশিসবাবুর।    

    পতঙ্গবিশারদদের মতে,এই যন্ত্র থেকে নির্দিষ্ট সময় অন্তর কার্বন ডাইঅক্সাইড গ্যাস বেরোয়। স্ত্রী মশা সেই গন্ধে আকৃষ্ট হয়ে যন্ত্রের দিকে ছুটে যায়।যে মুহূর্তে তারা যন্ত্রের সংস্পর্শে আসে তখনই মারা যায়। তবে শুধু নতুন যন্ত্র বসানোই নয়, মশার লার্ভা নিয়ন্ত্রণে খাল এবং ড্রেন সংস্কারের ওপরও জোর দিয়েছে এনকেডিএ। যে সব খালি প্লটে আবর্জনা জমে রয়েছে তা নিয়মিত পরিষ্কার করা হচ্ছে। নিয়মিত মশা মারার তেলও ছড়ানো হচ্ছে। প্রতিদিন প্লট ধরে ধরে এইসব কাজের রিপোর্ট নেওয়া হচ্ছে। মশক নিধনে কোনও রকম ঢিলেমি দেখাতে নারাজ এনকেডিএ। 

এছাড়াও পড়ুন: মশা নিউটাউন ফাঁদ এনকেডিএ