বৃহস্পতিবার, অক্টোবর 29, 2020

ছাত্রদের সভায় মমতা
ছাত্রদের সভায় মমতা

ছাত্রদের সভায় মমতা

  • scoopypost.com - Jan 27, 2020
  • সরস্বতী পুজোর পর আরও তীব্র করা হবে নাগরিক আইন বিরোধী আন্দোলন। সেই আন্দোলনের কর্মসূচি আজ সোমবার দলের ছাত্র-যুব সম্মেলন থেকে ঘোষণা করেন দলনেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

    তবে তৃণমূলের ছাত্র-যুবদের মিটিং এ ভরেনি নেতাজী ইন্ডোর। তৃণমূলের কোনও সভা এখানে হলে কানায় কানায় ভরে যেত ইন্ডোর। সোমবার সেই চেনা ছবি দেখা যায় নি। দেখা যায় নি যুব নেতা অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়কেও। যদিও নেত্রী জানিয়েছেন চোখের অপারেশন হওয়ায় তিনি বাড়ি থেকেই দলের কাজ করছেন।

    এদিনের মিটিং এ মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় নিজের বক্তব্যে নিজের ছাত্র আন্দোলনের দিনে ফিরে যান। বেশ কিছূ ঘটনার উল্লেখ করে তিনি দলের বর্তমান ছাত্র-যুবদের উজ্জীবিত করার চেষ্টা করেন। তিনি বলেন যোগমায়া দেবী কলেজে ভর্তি হওয়ার পর সেখানে তিনি ডি এস ওর ছাত্র সংগঠন ভেঙ্গে দিতে পেরেছিলেন। এমনকি সিপি এমের তাড়া থেকে বাঁচতে তিনি সোনালী গুহের শাড়ি পরে পালানোর ঘটনাও এদিন ছাত্র-যুবদের সঙ্গে শেয়ার করেন।এর পাশাপাশি তিনি বলেন, ছাত্র আন্দোলনের সময় সুব্রত মুখোপাধ্যায়ের মতো সিনিয়র নেতাদের কাছে অনেক বকুনিও খেয়েছেন।   

    এর পাশাপাশি তিনি বিজেপিকে এদিনও কড়া ভাষায় আক্রমণ করেন। এ রাজ্যে নাগরিক আইনের পক্ষে বিজেপি যে অভিনন্দন যাত্রা করছে তাকে বাম্বু যাত্রা বলে কটাক্ষ করেছেন। তিনি বলেন আর কিছুদিন পর এটা বিসর্জন যাত্রা হয়ে দাঁড়াবে।

    মমতা এদিন কৈলাস বিজয়বর্গীয়ের চিঁড়ে খাওয়া নিয়ে মন্তব্যের সমালোচনা করেন। তিনি বলেন, বলা হচ্ছে চিঁড়ে খেলে বাংলাদেশি। তুমি কী খেয়ে বড় হয়েছ? কেউ খাবার দেখে চিনে ফেলছেন, কেউ পোষাক দেখে চিনে নিচ্ছেন। পুরো দানবীয় কান্ড –কারখানা চলছে।

    তৃণমুল নেত্রী বলেন, আমরা বিজেপির কাছে দাসখৎ লিখে দিতে আসিনি। দেশকে আমরাও ভালবাসি। তবে সবাইকে নিয়েই।সব ধর্ম, বর্ণ, সম্প্রদায়ের মানুষকে নিয়েই আমেদের দেশ। আমরা সেই দেশকে ভালবাসি। বিজেপির বলে দেওয়া দেশকে নয়।