বুধবার, নভেম্বর 25, 2020

জঞ্জাল অপসারণে বাড়ল বাজেট বরাদ্দ
জঞ্জাল অপসারণে বাড়ল বাজেট বরাদ্দ

জঞ্জাল অপসারণে বাড়ল বাজেট বরাদ্দ

  • scoopypost.com - Sep 23, 2020
  • কলকাতা পুর প্রশাসক বোর্ডের পেশ করা বাজেট নিয়ে আইনি বিতর্ক দেখা দিল। মঙ্গলবার পুর প্রশাসক বোর্ডের চেয়ারম্যান হিসেবে ২০২০-২০২১ সালের বাজেট পেশ করেন চেয়ারম্যান ফিরহাদ হাকিম।তাঁর পেশ করা বাজেটের আইনি বৈধতা নিয়ে প্রশ্ন তোলেন বাম কাউন্সিলররা। প্রশাসক বোর্ডের সদস্য বৈশ্বানর চট্টোপাধ্যায় দাবি করেন এই বাজেট সম্পুর্ন আইনসঙ্গত। এই বোর্ডকে নির্বাচিত বোর্ডের সমস্ত ক্ষমতাই দেওয়া হয়েছে। পুরসভা চালানোর জন্য এই বাজেট পেশ করা জরুরি ছিল। পুর-বাজেট পেশ করে কোনও আইন বিরুদ্ধ কাজ করা হয়নি।

    পুর প্রশাসক ফিরহাদ হাকিম বাজেট পেশ করে বলেন, আমরা অনেক আগেই বাজেট পেশ করতে চেয়েছিলাম। কিন্তু সুপ্রিম কোর্টে এই নিয়ে মামলা থাকায় তা করা সম্ভব হয়নি। এর আগে ভোট অন অ্যাকাউন্টস পেশ করা হয়েছিল। এবার পূর্নাঙ্গ বাজেট পেশ করা  হল।

    এবার ১৭১ কোটি টাকার ঘাটতি বাজেট পেশ করা হয়েছে। সবচেয়ে বেশি জোর দেওয়া হয়েছে জঞ্জাল অপসারণ, জল সরবরাহ এবং স্বাস্থ্য ক্ষেত্রে। তিন বিভাগেই গতবারের চেয়ে বাজেট বরাদ্দ বাড়ানো হয়েছে। সবচেয়ে বেশি বাজেট বেড়েছে জঞ্জাল অপসারণে। তারপর জল সরবরাহ এবং স্বাস্থ্যে।

    জঞ্জাল অপসারণে গতবার বরাদ্দ ছিল ৪০৫ কোটি ৩৭ লক্ষ টাকা। এবার তা বেড়ে হয়েছে ৬০৬ কোটি টাকা। স্বাস্থ্য ক্ষেত্রে গতবারের বরাদ্দ ছিল ১৫৮ কোটি ৮৬ লক্ষ টাকা, তা বেড়ে হয়েছে ১৬৩ কোটি ৪৭ লক্ষ টাকা। একই ভাবে পানীয় জল সরবরাহে গতবারের বরাদ্দ বেড়ে হয়েছে ৪০৮ কোটি ১২ লক্ষ টাকা।

    এদিকে সুপ্রিম কোর্ট গতকালই পুরসভার ভোট নিয়ে রাজ্য সরকার, রাজ্য নির্বাচন কমিশন এবং কলকাতা পুরসসভার কাছে জবাব চেয়েছে। বিচারপতি এস কে কল, বিচারপতি অনিরুদ্ধ বোস এবং বিচারপতি কৃষ্ণ মুরারই এর ডিভিশন বেঞ্চ এই জবাবদিহি চেয়েছে। 

    অতিমারীর কারণে কলকাতা পুরসভার নির্বাচন করা যায় নি। এই পরিস্থিতিতে পুরসভার কাজকর্ম চালাতে রাজ্য সরকার এই বোর্ড গঠন করে। সেই বোর্ড গঠনকে চ্যালেঞ্জ করে আদালতে আবেদন করা হয়। কলকাতা হাইকোর্ট রাজ্য সরকারের সিদ্ধান্তেই মান্যতা দেয়। হাইকোর্টের এই সিদ্ধান্তকে চ্যালেঞ্জ জানিয়ে সুপ্রিম কোর্টে আবেদন করা  হয়। সেই আবেদনের ভিত্তিতেই শীর্ষ আদালত তিন পক্ষের কাছে জবাবদিহি চেয়েছে।