মঙ্গলবার, অক্টোবর 27, 2020

নতুন রেট্রো-মডার্ন ইম্পেরিয়াল ৪০০
নতুন রেট্রো-মডার্ন ইম্পেরিয়াল ৪০০

নতুন রেট্রো-মডার্ন ইম্পেরিয়াল ৪০০

  • scoopypost.com - Nov 04, 2019
  • ভারতীয় মোটরসাইকেলের বাজারে ৩৫০-৫০০ সিসি ক্যাটেগরিতে রয়্যাল এনফিল্ড বুলেটের একচ্ছত্র আধিপত্যকে ইতিমধ্যেই চ্যালেঞ্জ করেছে জাওয়া। ফর্টি টু আর ক্লাসিক মডেলদুটিকে ক্রেতারা পছন্দও করছেন। ওল্ড স্কুল ক্লাসিক, রেট্রো মডেল না হলেও বাজাজ ডমিনারও ক্রুইজিং ক্লাসের লড়াইয়ে বেশ বেগ দিয়েছে বুলেট ক্লাসিক বা হিমালয়ানকে। বিএমডব্লিউ বা ট্রায়াম্ফের কথা না হয় ছেড়েই দিলাম। আসলে বাজারে এখন অনেক অপশন। স্টাইলিং, প্রাইসিং আর ইজ অফ ওনারশিপ, এই তিনটি বিষয়ে সবচাইতে খুঁতখুঁতে রাইডাররা। সাড়ে তিনশো থেকে চারশো সিসির মোটরবাইকের প্রতিযোগিতায় এবার ফের নতুন এক অবতার। বেনেলি ইম্পেরিয়াল ৪০০।

    বেনেলির ইম্পেরিয়াল ফোর হান্ড্রেড রূপে একেবারে মডার্ন ক্লাসিক। টিয়ার ড্রপ পেট্রোল ট্যাঙ্ক, আলাদা রাইডার আর পিলিয়ন সিট। ডিজাইনে ক্রোমের ছড়াছড়ি। রাউন্ড শেপড হেডল্যাম্প। টুইন পড স্পিডোমিটার ক্লাস্টার। বেনেলির ১৯৫০ সালের ভিন্টেজ ইম্পেরিয়াল মোটরসাইকেলের সঙ্গে এর প্রচুর মিল খুঁজে পাবেন বাইকপ্রেমীরা। তবে, ইম্পেরিয়ালে হেডলাইট থেকে টেললাইট, সাইড ইন্ডিকেটরে কোথাও এলইডি-র ব্যবহার করেনি বেনেলি। ইম্পেরিয়ালের সিঙ্গল সিলিন্ডার ইঞ্জিন ৩৭৪ সিসির। এয়ার কুলড ফোর ভালভের ইঞ্জিন ২০.৭ বিএইচপি পাওয়ার আউটপুটে সক্ষম। এই মোটরসাইকেলের গিয়ার পাঁচটি। ৪৫০০ আরপিএম-এ ২৯ নিউট্রন মিটার টর্ক হাইওয়ে রাইডিংয়ের পক্ষে ভাল। তবে, রেট্রো লুক হলেও বেনেলি ইম্পেরিয়ালে যোগ করেছে আধুনিক সেফটি ফিচারস। দুই চাকাতেই ডিস্ক ব্রেকস। ডুয়েল চ্যানেল এবিএস সমেত। সামনের টেলিস্কোপিক ফর্ক ৪১ মিলিমিটারের। পিছনে মোনোশকের বদলে প্রি-লোড অ্যাডজাস্টেবল টুইন শক অ্যাবজর্ভার। সবমিলিয়ে বেশ আকর্ষক প্যাকেজ। কার্বুরেটরের বদলে ফুয়েল ইনজেকশন ইঞ্জিন তেলের সাশ্রয় তো করেই সেইসঙ্গে অল ওয়েদার স্টার্টেও সক্ষম। লং ডিসট্যান্স রাইডিংয়ের জন্যে ইম্পেরিয়ালকে বানিয়েছে বেনেলি। টপস্পিড ১৩০ কিমি প্রতি ঘন্টা হলেও ঘন্টায় ৯৫ কিলোমিটার গতিতেই সবচাইতে স্বচ্ছন্দ বোধ করে এই রেট্রো মডার্ন মোটরবাইক। ৩০০০ আরপিএমে এ ফুটপেগ, ফুয়েল ট্যাঙ্ক ও সিটে কিছুটা ভাইব্রেশন ফিল করলেও হ্যান্ডেলবারে কোনও প্রভাব পড়ে না। হাইওয়ে তো বটেই, ইম্পেরিয়াল খানাখন্দ ভর্তি রাস্তাতেও বেশ স্টেবল রাইড দেয়। ইম্পেরিয়ালের গ্রাউন্ড ক্লিয়ারেন্স ১৬৫ মিলিমিটার। তবে, এটি কোনওভাবেই অফ রোডিংয়ের জন্যে উপযুক্ত নয়।সিলভার, মেরুন আর ব্ল্যাক কালারে মিলছে ইম্পেরিয়াল। দাম এক্স শোরুম ১.৬৯ লক্ষ টাকা।