শুক্রবার, অক্টোবর 30, 2020

গাড়ী শিল্প কোমায়, ধুঁকছে ইস্পাতশিল্প
গাড়ী শিল্প কোমায়, ধুঁকছে  ইস্পাতশিল্প

গাড়ী শিল্প কোমায়, ধুঁকছে ইস্পাতশিল্প

  • scoopypost.com - Oct 19, 2019
  • ফের অর্থনৈতিক মন্দার কালো ছায়া ঘনিয়েছে ভারতের অর্থনীতিতে? শিল্পমহল থেকে ক্রেতা, ছোট-বড়-মাঝারি ব্যবসায়ী, সবার মনেই এক প্রশ্ন। চাহিদা না থাকায় বিক্রি কমছে বছর খানেক ধরেই। তবে ডিলার সংস্থাগুলির আশা ছিল, অন্তত উৎসবের মরসুমের মুখে ক্রেতা কিছুটা বাড়বে। পূরণ হল না আশা। তাদের সংগঠন ফাডার হিসেব জানাল, গত সেপ্টেম্বরে তার আগের বছরের একই সময়ের তুলনায় সব ধরনের গাড়ি বিক্রি কমেছে প্রায় ১৩%। ক্রেতার অভাবে শো-রুমে ডাঁই হচ্ছে অবিক্রীত গাড়ি। সঙ্গে বাড়ছে উদ্বেগও। বিক্রি ধাক্কা খাওয়ায় ইতিমধ্যেই বহু শো-রুমের ঝাঁপ বন্ধ করতে হয়েছে। কাজও খুইয়েছেন অনেক কর্মী। গত ১১ মাস ধরে পাইকারি বাজারেও কমেছে সার্বিক যাত্রী গাড়ির বিক্রি।

    গাড়ি বিক্রি কমায় চাহিদা মার খেয়েছে ইস্পাতেরও। সংবাদ সংস্থার খবর, টাটা স্টিল তাদের তারাপুরের কারখানায় উৎপাদন কমিয়েছে ১৫%। সেখানে তৈরি ইস্পাতের ৩০% কেনে গাড়ি সংস্থাগুলি।

    শুক্রবার ফাডার দাবি, সার্বিক যাত্রী গাড়ির (যাত্রী গাড়ি, ইউভি ও ভ্যান) শো-রুমে ২১ দিন পড়ে থাকা স্বাভাবিক। কিন্তু তা এখন পৌঁছেছে গড়ে ৩০-৩৫ দিনে। প্রায় ৬০-৬৫ দিন পড়ে থাকছে দু’চাকা, বাণিজ্যিক গাড়ির ক্ষেত্রে কম করে ৫০-৫৫ দিন।

    ডিলারদের দাবি, চাহিদা নেই। তাঁদের প্রশ্ন, গাড়ি শিল্প-সহ অর্থনীতিতে চাহিদা বাড়াতে কেন্দ্রের ঘোষিত একের পর এক পদক্ষেপগুলি সুফল দিতে শুরু করবে কবে? উৎসবের মরসুম বিদায় নেওয়ার আগে সেটা সম্ভব কি? অনেকের আবার আশঙ্কা, সম্ভাব্য ক্রেতারা আগামী দিনে জিএসটি কমার আশায় হাত গুটিয়ে বসে নেই তো!

    নির্মাতা সংস্থাগুলি ডিলারদের যত গাড়ি বেচে (অর্থাৎ পাইকারি ব্যবসা) তার তুলনায় ক’টি শোরুম থেকে বিক্রি হল, সেই হিসেব ব্যবসার আসল ছবিটা তুলে ধরে। ফাডা জানিয়েছে, তিন চাকা ছাড়া বাকি সব ধরনের গাড়ির বিক্রিই গত মাসে কমেছে। সংগঠনের প্রেসিডেন্ট আশিস হর্ষরাজ কালে জানান, কেন্দ্রের পদক্ষেপগুলি এখনও খুচরো বাজারে চাহিদা বাড়ায়নি। শিল্পের দুর্দশা কাটবে কি না, তা বুঝতে অক্টোবর মাস অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ।