বৃহস্পতিবার, অক্টোবর 22, 2020

নতুন ই-রিকশা ‘এক্সাইড নিও’
নতুন ই-রিকশা  ‘এক্সাইড নিও’

নতুন ই-রিকশা ‘এক্সাইড নিও’

  • scoopypost.com - Oct 17, 2019
  • ভারতের ক্রমবর্ধমান ই-রিকশা বাজারে নামল এক্সাইড ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেড। বুধবার সংস্থার তরফে লঞ্চ করা হল ই-রিকশা ‘এক্সাইড নিও’। মাহিন্দ্রা, টিভিএসের পর এক্সাইড তৃতীয় বৃহৎ ভারতীয় সংস্থা যারা ই-রিকশা বাজারে  নিয়ে এল। বর্তমানে দেশে ই-রিকশা বা টোটো-র বাজারের প্রায় ৮৫-৯০ শতাংশ অসংগঠিত ক্ষেত্রের দখলে। আর তার প্রায় পুরোটাই চিন থেকে আমদানি করা একাধিক ব্র্যান্ডের কবজায়।

    এক্সাইড ম্যানেজিং ডিরেক্টর ও সিইও গৌতম চট্টোপাধ্যায়ের মতে, শহরে যাতায়াতের জন্য মেট্রো রেলকেই বেছে নিচ্ছেন মানুষ। মেট্রো স্টেশন থেকে নিত্যযাত্রীদের বাড়ি যাতায়াত করতে ই-রিকশা অন্যতম মাধ্যম। কারণ, এগুলি পরিবেশ-বান্ধব। আট বছর আগে থেকেই এক্সাইড ই-রিকশার ব্যাটারি তৈরি করা শুরু করে। পরের ধাপে সরাসরি সংস্থার ব্র্যান্ডেই ই-রিকশা বাজারে আনার পরিকল্পনা। বর্তমানে ভারতে বছরে ই-রিকশা বিক্রির অঙ্কটা প্রায় এক থেকে দেড় লক্ষ।

    এক্সাইড ডিরেক্টর অটোমোটিভ অরুণ মিত্তল জানয়েছেন, তাঁদের লক্ষ্য প্রথম বছরে এই বাজারের ১০ শতাংশ অংশীদারি দখল করা। যার জন্যে ডানকুনিতে জায়গা ভাড়া নিয়ে কারখানা গড়েছে এক্সাইড। ই-রিকশা উৎপাদন খরচের ৪০ শতাংশই ব্যাটারিতে চলে যায়। বাকি ৬০ শতাংশের মধ্যে চাকা, আলো, এলসিডি ডিসপ্লে স্ক্রিন, মোবাইল চার্জার। এসবই দেশিয় প্রযুক্তিতে তৈরি করা হচ্ছে বলেও জানান তিনি। কিছু সাইকেল পার্টস আমদানি করা হচ্ছে। ই-রিকশা-র ব্যাটারি তৈরি করা হচ্ছে এক্সাইডের হলদিয়ার কারখানায়। 

    ভারতে ব্যাটারি চালিত যাত্রিবাহী গাড়ির জন্য লিথিয়াম আয়ন ব্যাটারি তৈরি করতে একটি সুইস সংস্থার সঙ্গে গাঁটছড়া বেঁধে গুজরাটে কারখানা গড়েছে এক্সাইড। ডিসেম্বর থেকেই ওই কারখানায় লিথিয়াম আয়ন ব্যাটারি উৎপাদন চালু হয়ে যাবে।